ঢাকা-বরিশাল রুটে ঈদে স্টিমার ও বিমানের স্পেশাল সার্ভিস
নামছে অ্যাডভেঞ্চারের নতুন লঞ্চ ও ক্যাটামারান
ঢাকা-বরিশাল রুটে ঈদে স্টিমার ও বিমানের স্পেশাল সার্ভিস
ঈদ-উল ফিতর উপলক্ষে নাড়ীর টানে বাড়ি ফেরা যাত্রীদের জন্য বিআইডব্লিউটিসি’র সরকারি জাহাজ (স্টিমার) ও উপকূলীয় এলাকার অভ্যন্তরীণ রুটে চলাচলকারী সি-ট্রাকগুলো ১৩ জুন থেকে স্পেশাল সার্ভিস চালু করতে যাচ্ছে। এছাড়া আকাশপথে বাংলাদেশ বিমান ও ইউএস বাংলা বিশেষ সেবা দেবে।

তবে এই রুটের সিংহভাগ যাত্রী বেসরকারি কোম্পানির লঞ্চে যাতায়াত করলেও বিআইডব্লিউটিএ এখনো লঞ্চের স্পেশাল সার্ভিসের সময় নির্ধারণ করতে পারেনি। সংস্থার কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, বেসরকারি যাত্রী পরিবহন সংস্থার (যাপ) নেতাদের সাথে বৈঠকের পর সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। তাদের চাহিদা অনুযায়ী আলোচনা করে লঞ্চের স্পেশাল সার্ভিসে সিডিউল দেওয়া হবে। এখন পর্যন্ত যে প্রস্তুতি রয়েছে তাতে ঢাকা-বরিশাল নৌ-রুটে ৬টি রকেট স্টিমার ও ৩০টির অধিক বেসরকারি কোম্পানির লঞ্চ ঈদে যাত্রী পরিবহন করবে।

এদিকে বেসরকারি কোম্পানির স্পেশাল সার্ভিসের সিডিউল ঘোষণা না হলেও বিলাসবহুল লঞ্চ মালিকরা ১৩, ১৪ ও ১৫ জুনের টিকিট ইতোমধ্যেই বিক্রি করেছেন। লঞ্চ মালিকরা জানিয়েছেন, ঈদে ১৩ জুন সকল কোম্পানির লঞ্চ থাকবে, সেক্ষেত্রে পূর্বে টিকিট বিক্রি করলেও যাত্রীদের কোনো সমস্যা হবে না।

বিআইডব্লিউটিসি’র সহ-মহাব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) সৈয়দ আবুল কালাম আজাদ জানান, তাদের মোট ৮টি স্টিমার ১৩ জুন থেকে ঈদ স্পেশাল সার্ভিসের যাত্রী পরিবহন শুরু করবে। এরমধ্যে এমভি বার আউলিয়া ও এমভি আ. মতিন চলাচল করবে চট্টগ্রাম ও হাতিয়া রুটে। রাজধানী ঢাকা থেকে দক্ষিণাঞ্চলের বরিশাল, ঝালকাঠী, হুলারহাটসহ মোরেলগঞ্জ পর্যন্ত যাত্রী পরিবহন করবে পিএস মাহসুদ, অস্ট্রিচ, লেপচা, টার্ন, এমভি মধুমতি ও এমভি বাঙালি।

স্টিমারের বিশেষ সেবার সময়সূচি:জানা গেছে, ১৩ জুন সংস্থার নিয়মিত সার্ভিসে থাকা পিএস মাহসুদ’র পাশাপাশি স্পেশাল সার্ভিসে ঢাকা থেকে পিএস লেপচা সন্ধ্যা ৭টায় মোরেলগঞ্জের উদ্দেশ্যে যাত্রী পরিবহন করবে। ১৪ জুন নিয়মিত সার্ভিসে থাকা এমভি বাঙালি’র পাশাপাশি সন্ধ্যা ৭টায় পিএস অস্ট্রিচ স্পেশাল সার্ভিসের যাত্রী নিয়ে ঢাকা থেকে বড় মাছুয়ার উদ্দেশ্যে যাত্রী পরিবহন করবে। ১৫ জুন স্পেশাল সার্ভিসে থাকা এমভি মধুমতি ঢাকা থেকে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় মোরেলগঞ্জের উদ্দেশ্যে এবং পিএস টার্ন সন্ধ্যা ৭টায়  হুলারহাটের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হবে। এছাড়া ১৬ জুন ঢাকা থেকে নিয়মিত সার্ভিসে থাকা পিএস মাহসুদ, ১৭ জুন পিএস অস্ট্রিচ, ১৮ জুন এমভি বাঙালি, ১৯ জুন পিএস মাহসুদ মোরেলগঞ্জের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাবে। ২০ জুন নিয়মিত সার্ভিসের যাত্রী নিয়ে পিএস অস্ট্রিচ খুলনার উদ্দেশ্যে এবং একই দিন স্পেশাল সার্ভিসের যাত্রী নিয়ে পিএস টার্ন সন্ধ্যা ৭টায় মোরেলগঞ্জের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাবে। ২১ জুন নিয়মিত সার্ভিসের যাত্রী নিয়ে এমভি মধুমতি মোরেলগঞ্জের উদ্দেশ্যে এবং একই দিন বিশেষ সার্ভিসের যাত্রী নিয়ে পিএস লেপচা সন্ধ্যা ৭টায় হুলারহাটের উদ্দেশ্যে ঢাকা ছেড়ে যাবে।

একদিন বিমানের সর্বনিম্ন ভাড়া ১৫৯৯: আকাশপথে বিমান বাংলাদেশ ফ্লাইট বৃদ্ধির পাশাপাশি ১০ জুন থেকে ১৫ জুন পর্যন্ত সর্বনিম্ন ২ হাজার থেকে সর্বোচ্চ ৮ হাজার ২০০ টাকা পর্যন্ত ভাড়া নির্ধারণ করেছে। বিমান বাংলাদেশের বরিশালের ব্যবস্থাপক ইকবাল আহমেদ চৌধুরী জানান, ১৩ জুন একদিনের জন্য স্পেশাল সার্ভিসে সর্বনিম্ন ১৫৯৯ টাকা ভাড়া নির্ধারণ করা হয়েছে। বেসরকারি বিমান ইউএস বাংলার বরিশালের ইনচার্জ মো. সাইফুর রহমান জানান, সপ্তাহে তিন দিন নিয়মিত সার্ভিসের পাশাপাশি ১২  ও ১৩ জুন স্পেশাল সার্ভিস পরিচালনা করা হবে। ইউএস বাংলা সর্বনিম্ন ২৬৯৯ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ৯ হাজার টাকা পর্যন্ত ভাড়া নির্ধারণ করেছে।

যুক্ত হচ্ছে নতুন লঞ্চ: লঞ্চমালিকরা জানিয়েছেন, ঈদ সার্ভিসের লঞ্চগুলোর মধ্যে এ্যাডভেঞ্চার-৯ ও পূর্বের এ্যাডভেঞ্চার-১’র পাশাপাশি দিবা সার্ভিসে নবনির্মিত ক্যাটামেরিন এ্যাডভেঞ্চার-৫ও যুক্ত হচ্ছে। এ্যাডভেঞ্চার শীপ বিল্ডার্স লিমিটেড চেয়ারম্যান মো. নিজাম উদ্দিন জানান, বিলাস বহুল এ্যাডভেঞ্চার-৯ এবং দিবা সার্ভিসের ক্যাটামেরিন এ্যাডভেঞ্চার-৫ আগামী ৭ জুন ঢাকার সদরঘাট থেকে প্রথমবারের মতো যাত্রী নিয়ে বরিশালের উদ্দেশে রওয়ানা দেবে।

এছাড়া সদ্য নির্মিত বিলাসবহুল কীর্তনখোলা-১০ এর পাশাপাশি সার্ভিসে থাকা কীর্তনখোলা-২, সুন্দরবন - ৮, ১০, ১১, ১২, সুরভী- ৭, ৮, ৯, পারাবত- ২, ৯, ১০, ১১, ১২, এমভি টিপু-৭, এমভি ফারহান-৮, দ্বীপরাজ এবং কালাম খান-১, তাসরিফ-১,৪ দেশান্তর ও গ্রীনলাইন  ২,৩ সহ ৩০টিরও বেশি লঞ্চ থাকবে। তবে ঝালকাঠি ও পিরোজপুরে থেকে ৪টি লঞ্চ ভায়া হিসেবে বরিশাল নদী বন্দর হয়ে চলাচল করলেও ঈদের সময় যাত্রীর চাপ থাকায় এগুলোকে বরিশাল নদী বন্দরে ঘাট দিতে দেওয়া হবে না।

বিআইডব্লিউটিএ’র নৌ নিরাপত্তা ও ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা বিভাগের উপ-পরিচালক আজমল হুদা সরকার মিঠু জানান, যাত্রীদের নিরাপত্তার বিষয়টি মাথায় রেখে লঞ্চে ও টার্মিনালে সিসি-ক্যামেরাসহ বিভিন্ন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। অতিরিক্ত যাত্রী বহন বন্ধে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হবে। তিনি জানান, গত ঈদে ২৭টি লঞ্চ পরিচালনা করলেও এবার নতুন কয়েকটি লঞ্চ সংযোজন হওয়ায় ৩০টিরও বেশি লঞ্চ যুক্ত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
৪ জুন, ২০২১ ইং
ফজর৩:৪৪
যোহর১১:৫৭
আসর৪:৩৭
মাগরিব৬:৪৬
এশা৮:০৯
সূর্যোদয় - ৫:১০সূর্যাস্ত - ০৬:৪১
পড়ুন