নাব্যতা সংকটে ফেরি চলাচল সীমিত, ঢাকামুখীদের দুর্ভোগ
শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি নৌপথ
মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি২৬ আগষ্ট, ২০১৮ ইং
ঈদের ছুটি শেষে কর্মস্থলে ফিরতে শুরু করেছে মানুষ। গতকাল শনিবার বিকালে শিমুলিয়া ঘাটে ঢাকামুখী মানুষের স্রোত নামে। তবে নাব্যতা সংকটের কারণে ফেরি চলাচল ব্যাহত হওয়ায় দুর্ভোগ বেড়েছে। ভোর ৪টার দিকে শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি নৌরুটের লৌহজং টার্নিংয়ের কাছে সরু চ্যানেলে একটি ফেরি আটকে যায়। তাই অন্যান্য ফেরি এই চ্যানেল অতিক্রম করতে পারছিল না। এতে সকাল ৬টা পর্যন্ত প্রায়  দুই ঘন্টা ফেরি চলাচল বন্ধ থাকে। তবে চ্যানেলের মুখ থেকে ফেরি সরিয়ে নেওয়ার পর আবার ফেরি সার্ভিস সচল হয়। নাব্যতা সংকটের কারণে রো রো ফেরি ও ডাম্প ফেরিসহ ১০টি ফেরি চলাচল করতে পারছে না। তবে এখন কে-টাপই ও ছোট ৮টি ফেরি দিয়ে সার্ভিসটি সচল রাখা হয়েছে। এখনও শিমুলিয়া ঘাটে ১শ’ ও কাঁঠালবাড়িঘাটে ৬শ’ যান পারাপারে অপেক্ষায় রয়েছে। অনেকে যানবাহন রেখেই স্পীডবোট এবং লঞ্চে করে পদ্মা পার হয়ে গন্তব্যে পৌঁছছে। সীমিত আকারে চলা এই সার্ভিসও যে কোন সময় বন্ধ হয়ে যেতে পারে বলে আশঙ্কা করেছে বিআইডব্লিউটিসি।

বিআইডব্লিউটিসি’র এজিএম খন্দকার শাহ খালেদ নেওয়াজ জানান, নাব্যতা সঙ্কটে ফেরি সচল রাখা কঠিন হলেও বিড়ম্বনা হ্রাস করতে সীমিত আকারে ফেরি সচল রাখা হয়েছে। তবে অবস্থা ক্রমেই খারাপের দিকে।

তিনি আরো জানান, চ্যানেলে পানি একেবারেই কম। শুক্রবার এই রুটের ৩টি স্থানে ৬টি ফেরি আটকে যায়। আবার শনিবার ভোরে আরও খারাপ অবস্থা দেখা দেয়। বহরে বর্তমানে ১৮টি ফেরি রয়েছে। রো রোসহ ১০টি ফেরি অলস বসে আছে। পরে অনেক চেষ্টা করে চরে আটকানো ফেরিগুলোকে উদ্ধার করা হয়। বিআইডব্লিইটিএ ড্রেজিংয়ের দায়িত্বে রয়েছে। তারা ড্রেজিং করছে। এদিকে এখনও ফেরি চলছে ওয়ানওয়েতে। যার দরুন স্বাভাবিকের চেয়ে সময় লাগছে বেশি। এছাড়া ফেরিগুলো এখনও ফুল লোড করা যাচ্ছে না। ফেরি সার্ভিসের এই অচলতায় এখানকার অর্থনৈতিতে নেতিবাচক প্রভাবসহ সরকার কোটি কোটি টাকার রাজস্ব হারাচ্ছে। এদিকে লঞ্চ ও স্পীডবোট ঘাটেও ভিড় ছিল । এ রুটে ৮৭ টি লঞ্চ এবং প্রায় ৪শ’ স্পীডবোট যাত্রী পারাপার করছে ।

এদিকে শিবচর (মাদারীপুর) সংবাদদাতা জানান, নাব্যতা সংকটের কারণে কাঁঠালবাড়ি-শিমুলিয়া নৌরুটে ফেরি চলাচল ব্যাহত হওয়ায় কাঁঠালবাড়ি ঘাটে ধীরে ধীরে বাড়ছে যানবাহনের সারি। ভোগান্তি এড়াতে যাত্রী আর পরিবহন চালকদের বিকল্প পথ ব্যবহারের পরামর্শ দিয়েছে ঘাট কর্তৃপক্ষ।

দৌলতদিয়ায় যানবাহনের লাইন

গোয়ালন্দ (রাজবাড়ী) সংবাদদাতা জানান, ঈদ শেষে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের মানুষ রাজধানী ঢাকাসহ কর্মস্থলে ফিরতে শুরু করেছে। গতকাল সকাল থেকে অজস্র গাড়ি এবং মানুষ ছুটতে শুরু করে। দুপুরের পর ঢাকামুখি গাড়ির লাইন রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া ফেরি ঘাট থেকে মহাসড়কের ছয় কিলোমিটার ছাড়িয়ে যায়। এর মধ্যে প্রায় চার কিলোমিটার জুড়ে ছিল গাড়ির তিন-চার লাইন। ঘন্টার পর ঘন্টা আটকে থেকে নারী, শিশুসহ সব বয়সী মানুষকে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয়। 

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, গতকাল সকাল থেকে শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি নৌপথে নাব্যতা সংকটের কারণে ফেরি চলাচল মারাত্নকভাবে ব্যাহত হচ্ছে। এসব কারণে ওই নৌপথের অনেক গাড়ি দৌলতদিয়ায় আসছে। দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথে মোট ২০টি ফেরি থাকলেও একটি ফেরি শিমুলিয়া-কাঠালবাড়ি নৌপথে নিয়ে যাওয়ায় এবং একটি বিকল থাকায় ফেরি স্বল্পতায় ভুগছে কর্তৃপক্ষ।

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
২৬ আগষ্ট, ২০২১ ইং
ফজর৪:২০
যোহর১২:০১
আসর৪:৩৩
মাগরিব৬:২৬
এশা৭:৪১
সূর্যোদয় - ৫:৩৮সূর্যাস্ত - ০৬:২১
পড়ুন