মাদকের ব্যাপারে সমাজের দাবির বিষয়টি বিচারকদের বিবেচনায় নিতে হবে-------------আইনমন্ত্রী
ইত্তেফাক রিপোর্ট১২ নভেম্বর, ২০১৮ ইং

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, সমাজ বিচারকদের কাছ থেকে অনেক কিছু আশা করে। সমাজের অনেক সমস্যা আছে যেগুলো সমাজকে কুরে কুরে খেয়ে ফেলছে। পরিবারকে ধ্বংস করে দিচ্ছে। তিনি বলেন, একটি পরিবারকে ধ্বংস করে দেওয়ার জন্য পরিবারের শুধু একজন সদস্য মাদকাসক্ত হওয়াই যথেষ্ট। এ কারণে মাদকের ব্যাপারে সরকারের অবস্থান অত্যন্ত কঠোর। তাই প্রশিক্ষণ শেষে বিচারকদের নিজ নিজ অধিক্ষেত্রে ফিরে গিয়ে মাদকের ব্যাপারে সমাজের দাবি ও অবস্থার কথা বিবেচনা করে ব্যবস্থা নিতে হবে। গতকাল রবিবার বিচার প্রশাসন ও প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটে চিফ জুডিসিয়াল ও চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেটদের জন্য আয়োজিত চতুর্থ অরিয়েন্টেশন কোর্সের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আইনমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, দুর্নীতি সবদিক দিয়ে ক্ষতিকর। তাই দুর্নীতির বিরুদ্ধে বিচারকদেরও অবস্থান নিতে হবে। দেশের জনগণ আপনাদের কাছ থেকে যে সেবা চায়, যা আশা করে তা দিতে কার্পণ্য করবেন না। আর বিচার করার ক্ষেত্রে সমাজের চাওয়া-পাওয়াকে বিচারকদের বিবেচনায় নিতে হবে।

আইনমন্ত্রী বলেন, বিচার বিভাগ সব সময় স্বাধীন ছিল না। যদি বিচার বিভাগ স্বাধীন থাকতো তাহলে বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের বিচারের জন্য ২১টি বছর অপেক্ষা করতে হতো না। বিচার বিভাগ স্বাধীন হয়েছে ২০০৭ সালের পহেলা নভেম্বর তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময়। কিন্তু বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা যদি সেটাকে আইনে পরিণত না করতেন তাহলে আজকেও অধস্তন আদালতের বিচারকরা নির্বাহী বিভাগের অধীনেই থাকতো। তিনি বলেন, বিচারকরা যাতে আর্থিকভাবে সচ্ছল থাকে সেজন্য তাদের বেতন প্রায় দ্বিগুণ বাড়ানো হয়েছে। এর ফলে বিচারকদের স্বাধীনভাবে কাজ করার মতো শিকড় তৈরি হয়েছে। দক্ষতা বাড়ানোর জন্য বিচারকদের অস্ট্রেলিয়া, ভারত, চীন ও জাপানে নিয়ে গিয়ে প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে।

বিচার প্রশাসন ও প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক বিচারপতি খোন্দকার মূসা খালেদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আইন সচিব আবু সালেহ শেখ মো. জহিরুল হকও বক্তৃতা করেন।

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
১২ নভেম্বর, ২০১৯ ইং
ফজর৪:৫৩
যোহর১১:৪৩
আসর৩:৩৯
মাগরিব৫:১৭
এশা৬:৩২
সূর্যোদয় - ৬:১১সূর্যাস্ত - ০৫:১২
পড়ুন