আকাঙ্ক্ষা থাকলে কি বাক্য হয়?
০৩ মার্চ, ২০১৬ ইং
সাধারণভাবে আমরা জানি যে, কতগুলো শব্দ বা পদ মিলে যদি কোনো বিষয়ে সম্পূর্ণ মনের ভাব প্রকাশ পায় তবে তাকে বাক্য বলে। আর একটি সার্থক বাক্যের তিনটি গুণ থাকা আবশ্যক। যেমন: ১. আকাঙ্ক্ষা; ২. আসত্তি; ৩. যোগ্যতা।

প্রথমেই আসি যোগ্যতায়। যোগ্যতা হলো একটি বাক্যের অন্তর্গত পদসমূহের অর্থগত ও ভাবগত মেলবন্ধন। যেমন: ‘পাখি আকাশে ওড়ে।’ এখানে অর্থগত ও ভাবগত সমন্বয় সাধিত হয়েছে। তাই এটি একটি সার্থক বাক্য। কিন্তু যদি বলা হয়, ‘মাছ আকাশে ওড়ে।’ তাহলে বাক্যটি যোগ্যতা হারাবে। কারণ এখানে অর্থগত ও ভাবগত সমন্বয় সাধিত হয়নি। আবার আসত্তি বা নৈকট্য হলো বাক্যের অন্তর্গত পদসমূহের সুশৃঙ্খল বিন্যাস। অর্থাত্ সার্থক বাক্যে যোগ্যতা ও আসত্তি থাকতে হবে। তাহলে যেহেতু ‘আকাঙ্ক্ষা’ সার্থক বাক্যের একটি গুণ বা বৈশিষ্ট্য সেহেতু বাক্যে আকাঙ্ক্ষা থাকতে হবে। কিন্তু প্রশ্ন হলো, আকাঙ্ক্ষা থাকলে কি বাক্য হয় ? যদি বলি, ‘সুমন প্রতিদিন সকালে...।’ তাহলে শ্রোতার মনে আরো কিছু শোনার আকাঙ্ক্ষা থেকে যায়। তাই এটি বাক্য নয়। অর্থাত্ আকাঙ্ক্ষা থাকলে বাক্য হয় না। কিন্তু যদি বলি,‘সুমন প্রতিদিন সকালে স্কুলে যায়।’ তাহলে এটি একটি সার্থক বাক্য। কারণ এখানে শ্রোতার আকাঙ্ক্ষা পূরণ হয়েছে। তাহলে সার্থক বাক্যের গুণ হিসেবে ‘আকাঙ্ক্ষা’র পরিবর্তে ‘আকাঙ্ক্ষার নিবৃত্তি’ বলা কি যুক্তিসঙ্গত নয়?

মো. রেজাউল কবীর,

প্রভাষক,বাংলা, আবদুল কাদির মোল্লা সিটি কলেজ, নরসিংদী

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
৩ মার্চ, ২০২১ ইং
ফজর৫:০৪
যোহর১২:১১
আসর৪:২৪
মাগরিব৬:০৫
এশা৭:১৮
সূর্যোদয় - ৬:১৯সূর্যাস্ত - ০৬:০০
পড়ুন