ভিনদেশে পড়ি
হার্ভার্ডে আমীরা
১৩ জুন, ২০১৬ ইং
হার্ভার্ডে আমীরা
এ বছর বিশ্বখ্যাত যুক্তরাষ্ট্রের হার্ভার্ড ইউনিভার্সিটিতে ভর্তির সুযোগ পেয়েছে আমীরা রহমান। চিটাগাং গ্রামার স্কুলের সাবেক এ শিক্ষার্থীকে নিয়ে লিখেছেন নাদিম মজিদ

আমীরা হার্ভার্ড ইউনিভার্সিটির নাম শুনেছিলেন চতুর্থ শ্রেণিতে পড়ার সময়। টেলিভিশনের মাধ্যমে জেনেছিলেন, বিশ্বব্যাপী এ ইউনিভার্সিটির ঐতিহ্যের কথা। তারপর থেকে স্বপ্ন বুনতেন এ বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়বেন।  শৈশবে স্বপ্ন দেখতেন, ডাক্তার হয়ে মানুষের সেবা করবেন। বড় হয়ে বুঝতে পারেন, ডাক্তার কাজ করে বায়োমেডিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারদের উদ্ভাবিত যন্ত্রপাতি দ্বারা। বায়োমেডিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার হলেই বরং সেবা করার বেশি সুযোগ। গত বছর চিটাগাং গ্রামার স্কুল থেকে এ লেভেল শেষ করে আন্ডারগ্রাজুয়েট পর্যায়ে ভর্তির জন্য বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে আবেদন করেন।

আবেদনের জন্য প্রয়োজনীয় এসএটি, আইইএলটিএস, টিইওইএফএল কোর্সগুলো আগেই করে রেখেছিলেন। বিদেশে ভর্তির জন্য প্রয়োজনীয় পরীক্ষা স্যাটে তার স্কোর ২৩০০, স্যাট সাবজেক্ট টেস্টে ২২৫০, টিইওএফএলে ১২০-এ ১১৯ এবং আইইএলটিএসে ৯.০-এ ৮.০। ভর্তির আবেদনে ছিল নিজের পছন্দের বিশ্ববিদ্যালয় হার্ভার্ড ইউনিভার্সিটিও। আবেদন শেষ করে অপেক্ষার পালা। অপেক্ষার প্রহর যেন শেষ হচ্ছিল না।

বুকের ভেতর সম্ভাবনা, আবার ভয়ও! নিজের পছন্দের বিশ্ববিদ্যালয় হার্ভার্ড ডাকবে তো!  আবেদন থেকে ফলাফল প্রদানের মাঝখানে কয়েক মাস সময়। এ সময়টুকু বসে না থেকে কাজে লাগান বিভিন্ন সহ-পাঠক্রমিক কাজে। নিজের চিটাগাং গ্রামার স্কুলে অ্যাসিসট্যান্ট টিচার হিসেবে ৫ম ও ৭ম শ্রেণির ইংরেজি সাহিত্যের ক্লাস নেন। ঢাকা, চট্টগ্রাম এবং যুক্তরাষ্ট্রের হার্ভার্ডের ছায়া জাতিসংঘের সম্মেলনে অংশ নেন।

গত এপ্রিলে পেয়ে যান নিজের কাঙ্ক্ষিত ফলাফল। হার্ভার্ড ইউনিভার্সিটি তাকে ভর্তির সুযোগ দিচ্ছে। আগামী সেপ্টেম্বরে তার ক্লাস শুরু হবে। আমীরা রহমান জানান, ‘এটি আমার জীবনের সেরা সংবাদগুলোর একটি। হার্ভার্ডে পড়তে পারা সত্যি ভাগ্যের ব্যাপার।’

সহ-পাঠক্রমিক অধ্যয়নে সবসময় এগিয়ে ছিলেন আমীরা রহমান। ২০০৯ সালে ভারতে অনুষ্ঠিত রাউন্ড স্কয়ার কনফারেন্সে হাইলি কমেন্ডেড অ্যাওয়ার্ড, ডিউক অব এডিনবার্গ অ্যাওয়ার্ডে ব্রোঞ্জ এবং সিলভার পুরস্কার, চট্টগ্রাম ক্লাব আয়োজিত চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতায় প্রথম স্থান, গার্ল সুইমিং প্রতিযোগিতায় পাঁচবার চ্যাম্পিয়ন এবং তিনবার রানার্স আপ হন।

এছাড়া ফটোগ্রাফি, চিত্রাঙ্কন এবং হস্তশিল্প, পিয়ানো, গান, নাচ, লেখালেখি, কোরিওগ্রাফি, সাঁতার, টেনিস, বাস্কেটবলে তার পারদর্শিতা রয়েছে। অবসরে বই পড়েন। তার প্রিয় লেখক হিসেবে মার্ক টোয়েন, উইলিয়াম শেক্সপিয়ার, টিএস ইলিয়টের পাশাপাশি বর্তমান সময়ের জেকে রাউলিং, ড্যান ব্রাউন এবং সিডনি শেলডনের মতো ব্যক্তিরা আছেন।

আগামী সেপ্টেম্বরে তার ক্লাস শুরু হবে। সেখানে পড়াশোনার পাশাপাশি সহ-পাঠক্রমিক কাজে নিজের দেশকে উপস্থাপন করবেন বলে জানিয়েছে আমীরা রহমান। ভবিষ্যতে বায়োমেডিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার হতে চান।

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
১৩ জুন, ২০২১ ইং
ফজর৩:৪৩
যোহর১১:৫৯
আসর৪:৩৯
মাগরিব৬:৪৯
এশা৮:১৪
সূর্যোদয় - ৫:১১সূর্যাস্ত - ০৬:৪৪
পড়ুন