এগিয়ে যাওয়া নারী
আইরিনের ভাবনা
আতোয়ার রহমান মনির১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং
আইরিনের ভাবনা
যেখানে নারীদের পিছিয়ে থাকতে হতো। হতো অন্যের প্রতিষ্ঠানে চাকরি করে মজুরি বা বৈষম্যর শিকার। আজ সেই মুহূর্তেই অন্যের প্রতিষ্ঠানে চাকরি না করে তথ্য প্রযুক্তির যুগে কম্পিউটার তথ্য প্রযুক্তি বিষয়ে নারীদের প্রশিক্ষণ দিয়েও আত্মনির্ভরশীল করার কথা ভাবছেন লক্ষ্মীপুরের আইরিন। আর তার প্রতিষ্ঠানে প্রশিক্ষণ নিয়ে সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকুরি নিয়ে প্রতিষ্ঠিত হয়েছেন শতাধিক নারী।

লক্ষ্মীপুরে স্থাপিত ‘আইরিন কম্পিউটার এন্ড ট্রেনিং সেন্টার’-এর স্বত্বাধিকারী আইরিন সুলতানা নারীদের তথ্য প্রযুক্তিতে এগিয়ে নিতে ট্রেনিং-এর উদ্যোগ নেন। ২০১০ সালে শ্যামলী আইডিয়াল পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট থেকে ডিপ্লোমা ইন ইঞ্জিনিয়ারিং কম্পিউটার বিভাগ থেকে পড়াশোনা শেষ করেন। ২০১১ সালে বিয়ে হয় তার। বিয়ের পর যেখানে তার থেমে যাওয়ার কথা কিন্তু তার বেলায় ঘটেছে উল্টো। সংসারের সকল কাজকর্ম সেরে তার প্রতিষ্ঠিত ‘আইরিন কম্পিউটার এন্ড ট্রেনিং সেন্টারে’ নারী প্রশিক্ষণে সময় দেন। কম্পিউটার ও তথ্য প্রযুক্তি বিষয়ে ফ্রি ব্যবস্থা থাকায় নারীরা উদ্বুদ্ধ হন তার ট্রেনিং সেন্টারে ভর্তি হতে। নারীদের প্রশিক্ষণসহ বিভিন্ন কর্মকাণ্ডে এবং সমাজে প্রতিষ্ঠা করতে দেখে সহযোগিতা করতে এগিয়ে আসেন তার স্বামী মাহাবুবের রহমান।

শিক্ষার্থী দীপা রানী পাল জানান, আমি কৃতজ্ঞ আইরিন ম্যাডামের নিকট। তার প্রতিষ্ঠানে কম্পিউটার শিখতে পেরে আজ আমি চাকরিজীবী। আমার মত এ প্রতিষ্ঠানে কম্পিউটার ও তথ্য প্রযুক্তি শিখে অর্ধশত নারী সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কাজ করছেন। সমাজে নারীরা ঘরে বসে না থেকে লোকজনের কটূক্তি না শুনে নিজেকে বিভিন্ন পেশায় নিয়োজিত করে কাজ করার আহ্বান জানান আইরিন সুলতানা।

 

 

 

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
১১ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ইং
ফজর৪:২৭
যোহর১১:৫৬
আসর৪:২৩
মাগরিব৬:১০
এশা৭:২৩
সূর্যোদয় - ৫:৪৪সূর্যাস্ত - ০৬:০৫
পড়ুন