মুনিয়ার মুন্সিয়ানা
০৫ ফেব্রুয়ারী, ২০১৮ ইং
মুনিয়ার মুন্সিয়ানা
জীবনে একটা ইচ্ছে পূরণ করার খুব শখ মুনিয়ার, বাবা-মাকে নিজের উপার্জনের টাকায় একটা উপহার দিতে চান তিনি। কি সেই উপহার? প্রশ্ন করতেই মুনিয়ার সলাজ উত্তর কি আবার গাড়ি! এমন মেয়েকে একেবারে সব্যসাচী বলাই যায়। ঠিক যেন দস্যিও। সংগীত-অভিনয়-উদ্যোগ-ইভেন্ট ব্যবস্থাপনা সবখানেই আছে তার দীপ্ত পদচারণা

  জিয়াউর রহমান চৌধুরী

 

বই পড়ার অসম্ভব নেশা মেয়েটার। গোয়েন্দা আর হরর বই পছন্দ বেশ। শুনে কিছুটা অবাক লাগলেও সাভারের মেয়ে মুনিয়া ইসলাম মৌর গল্পটা এমনই। বইয়ের সঙ্গে যার সখ্যতা, তার স্বপ্নও আছে প্রিয় বইকে ঘিরে। নানা ধরনের বই, সংগীতের সংগ্রহ দিয়ে গড়ে তুলতে চান নিজের একটা ব্যক্তিগত  লাইব্রেরি। যেখান থেকে বই নিতে কিংবা পড়তে পারবেন যে কোন বইপ্রেমী।

আলো ছড়ানোর এমন ভাবনাটা মুনিয়ার ছোটবেলা থেকেই। বইয়ের সঙ্গে সঙ্গে প্রাণীদের প্রতিও দরদ আছে কোমল-ছোট্ট হূদয়ে। নিজেই পোষেণ একটা বিড়াল। সারা ঘরে বিড়ালটা যখন ঘুরে বেড়ায় তখন হয়ে যায় তা মুনিয়ার রাজত্ব। মানুষের দুঃখ-ভালোবাসার পাশাপাশি প্রাণীমনও ছুঁয়ে যায় মুনিয়ার মন। বাড়ির পোষা বিড়ালটির মতো অযত্নে অবহেলায় থাকা প্রাণীদের জন্য করতে চান আশ্রম। যেখানে পথের কুকুর-বিড়ালরা থাকতে পারবে নিশ্চিন্তে। পশু চিকিত্সক আর তত্ত্বাবধায়কদের সান্নিধ্যে তাদের হবে নিরাপদ আশ্রয়। মানুষের মতো সুস্থভাবে বাঁচার অধিকার প্রাণীদের আছে, এমন মত মুনিয়া ইসলামের। মকবুল হোসেন ও ডালিয়া বেগমের প্রথম সন্তান মুনিয়া ইসলাম মৌ। ছোটবেলা থেকে বাকি দুই বোন মিম আর নিহিলার চেয়ে আদরও পেয়েছেন তুলনামূলক অন্যদের চেয়ে বেশি। তবে মা ডালিয়া বেগমের সঙ্গেই বেশি সখ্যতা মুনিয়ার।

মেয়ের আবদার-অনুরোধে মা-ই যে শেষ ভরসা। জীবনে একটা ইচ্ছে পূরণ করার খুব শখ মুনিয়ার, বাবা-মাকে নিজের উপার্জনের টাকায় একটা উপহার দিতে চান তিনি। কি সেই উপহার? প্রশ্ন করতেই মুনিয়ার সলাজ উত্তর কি আবার গাড়ি! এমন মেয়েকে একেবারে সব্যসাচী বলাই যায়। ঠিক যেন দস্যিও। সংগীত-অভিনয়-উদ্যোগ-ইভেন্ট ব্যবস্থাপনা সবখানেই আছে তার দীপ্ত পদচারণা। এতকিছুর মধ্যে নিজের প্রায়োরিটি কোনটা? এমন প্রশ্নে মুনিয়ার উত্তর, আমার কাছে ঠিক প্রায়োরিটি বলতে কিছু নেই। তবে, নিজের কাছে যেটা ভালো লাগে, করে আনন্দ পাই সব সময় সেটা নিয়েই থাকতে চাই। এই যে কিছুদিন আগেই কয়েক বন্ধু মিলে গড়ে তুলেছেন একটা প্রতিষ্ঠান র্যাপিড। যেখান থেকে ইভেন্ট ব্যবস্থাপনাসহ নানা সেবা দিচ্ছেন ক্লায়েন্টদের। প্রাণীর জন্য কোমল যে হূদয় সে হূদয়ে আবার অন্যকিছুও আছে। এতকিছুর মাঝে পড়াশোনাটাও বাদ পড়েনি। উচ্চ মাধ্যমিকে ভালো ফলের পর, অপেক্ষায় আছেন বিশ্ববিদ্যালয় জীবনের। নিজেকে এক সময় দেখতে চান, প্রতিষ্ঠিত করতে চান রেডিও জকি হিসেবে। আর জীবনের তিনটে ইচ্ছে পূরণে একাগ্র মিষ্টি মেয়ে মুনিয়া। যে করেই হোক, বাবা-মাকে তো খুশি করতেই হবে। 

 

 

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
৫ ফেব্রুয়ারী, ২০২০ ইং
ফজর৫:২০
যোহর১২:১৩
আসর৪:১২
মাগরিব৫:৫১
এশা৭:০৫
সূর্যোদয় - ৬:৩৭সূর্যাস্ত - ০৫:৪৬
পড়ুন