জাপানে রপ্তানি হচ্ছে দুই কোটি টাকার চামড়া
২৭ আগষ্ট, ২০১৫ ইং
ভালুকার বাণিজ্যিক কুমিরের খামার

g কামরুজ্জামান মানিক, ভালুকা (ময়মনসিংহ) সংবাদদাতা

ভালুকা উপজেলার হাতিবেড় গ্রামে বাণিজ্যিকভাবে গড়ে ওঠা ‘রেপটাইলস্ ফার্ম লিমিটেড’ থেকে চলতি বছরে অক্টোবর-নভেম্বর মাসে দ্বিতীয় দফায় জাপানে রপ্তানি হচ্ছে প্রায় ২ কোটি টাকার ৫শ’ কুমিরের চামড়া। অপরদিকে ফার্মটিতে ২২টি মা কুমিরের ১১শ’ টি ডিম বাচ্চা ফোটানোর জন্য ইনকিউবেটরে রাখা হয়েছে। এগুলো থেকে সাড়ে ৬ শতাধিক বাচ্চা পাওয়া যাবে বলে আশা করছেন ফার্ম কর্তৃপক্ষ।

ফার্মটির পক্ষ থেকে জানানো হয়, এখান থেকে গত বছর জাপানের একটি ট্যানারিতে ৪৩০টি কুমিরের চামড়া রপ্তানি করা হয়, যেগুলোর আনুমানিক বাজার মূল্য ছিল প্রায় দেড় কোটি টাকা। রপ্তানির জন্য ফার্মটিতে কুমিরের মাংস, দাঁত ও হাড় সংরক্ষণ করে রেখে বিভিন্ন দেশের সাথে যোগাযোগ করা হচ্ছে। মাংস শুকিয়ে প্রক্রিয়াজাত করে রপ্তানি করা হবে। এই ফার্ম থেকে ২০১০ সালে জার্মানির একটি ইউনিভার্সিটিতে ছোট বড় মিলিয়ে ৬৭টি কুমির ১ কোটি টাকায় বিক্রি করা হয়। এছাড়া ২০১৩ সালের অক্টোবর মাসে গাজীপুরের বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্কে উপহার হিসাবে ৫ টি কুমির দেয়া হয়।

উপজেলা সদর থেকে প্রায় ১৭ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত হাতিবেড় গ্রামে ২০০৪ সালের ডিসেম্বরে সাড়ে ১৩ একর জমিতে ৭৪ টি কুমির নিয়ে খামারটির যাত্রা শুরু হয়। মালয়েশিয়ার সারওয়াত থেকে সোয়া কোটি টাকা ব্যয়ে ৭৫ টি কুমির আনা হয় এই ফার্মে। ফার্মটিতে কৃত্রিম উপায়ে ডিম ফুটানোর ব্যবস্থা রয়েছে। বর্তমানে খামারে ৪০টি পুকুর রয়েছে। কুমিরের কোন কিছুই ফেলনা নয় বলে চামড়া, মাংস, দাঁত ও হাঁড় বিক্রি করা যায়। চিন, জাপান, তাইওয়ান, থাইল্যান্ডসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ৭০ থেকে ৭৫ হাজার মার্কিন ডলার মূল্যমানের কুমিরের মাংসের চাহিদা রয়েছে। বর্তমানে অস্ট্রেলিয়া, ব্যাংকক, ভিয়েতনাম, সিংগাপুর, পাপুয়া নিউগিনি, ইন্দোনেশিয়া, চিনসহ প্রায় অর্ধশত দেশে বাণিজ্যিকভাবে কুমিরের চাষ হচ্ছে।

ফার্ম ম্যানেজার আবু সাইম মোহাম্মদ আরিফ জানান, ফার্মের ২২ টি মা কুমির প্রায় ৫০ টি করে ডিম দিয়েছে। ২০১৪ সাল থেকে কুমির প্রজনন ও উত্পাদনের স্বার্থে দর্শনার্থীদের প্রবেশ নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এর আগে জনপ্রতি ২৫০টাকা ফি’র বিনিময়ে পরিদর্শনের সুযোগ দেয়া হত। ভবিষ্যতে দর্শনার্থীদের জন্য আলাদাভাবে নির্দিষ্ট ফি’র বিনিময়ে কুমির দেখানোর পরিকল্পনা রয়েছে। ব্যবস্থাপনা পরিচালক রাজিব সোম বলেন, এ ফার্ম থেকে প্রতি বছর দেড় থেকে দুই হাজার কুমিরের চামড়া ও অন্যান্য অংশ রপ্তানি করা সম্ভব হবে।

 

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
২৭ আগষ্ট, ২০১৯ ইং
ফজর৪:২০
যোহর১২:০১
আসর৪:৩৩
মাগরিব৬:২৫
এশা৭:৪০
সূর্যোদয় - ৫:৩৮সূর্যাস্ত - ০৬:২০
পড়ুন