আগৈলঝাড়ায় দরিদ্র স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণ
সত্যতা জেনেও ব্যবস্থা নেয়নি পুলিশ
বরিশালের আগৈলঝাড়ায় গণধর্ষণের শিকার হয়েছে হতদরিদ্র পরিবারের সন্তান ষষ্ঠ শ্রেণির এক স্কুল ছাত্রী। পুলিশের কাছে ওই ছাত্রী ধর্ষণের সত্যতা স্বীকার করলেও পুলিশ পরবর্তী ব্যবস্থা করেনি, মামলা করলে থানায় আসার পরামর্শ দিয়েছে শুধু।

ওই ছাত্রীর ভাই ও মামা জানান, বাগধা ইউনিয়নের পশ্চিম বাগধা গ্রামের নারায়ণ বল্লভের ছেলে রনজিত বল্লভ ওরফে বুলেট (২০) ও তার বন্ধু ইউনুস সরদারের ছেলে মাসুদ সরদার (২১) ও স্থানীয় চোকদার আব্দুল হকের ছেলে সোহাগ (২০) সোমবার সকালে দরিদ্র কাঠ মিস্ত্রির মেয়ে ওই স্কুল ছাত্রীকে একটি পুকুরপাড়ে ডেকে নিয়ে ধর্ষণ করে। ধর্ষিতার ডাক-চিত্কারে লোকজন এগিয়ে এলে ধর্ষকেরা পালিয়ে যায়। এলাকায় জানাজানি হলে স্থানীয় ২নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আব্দুর রহিম সরদার ও চৌকিদার আব্দুল হক ধর্ষিতার বাড়ি গিয়ে তার সাথে কথা বলে ধর্ষণের সত্যতা পেয়ে কাউকে কিছু জানাতে নিষেধ করে তারাই এলাকায় ধর্ষিতা যে বিচার চায় তাই করে দেয়ার আশ্বাস দেয়। তবে আব্দুর রহিম অসুস্থতার কথা জানিয়ে ধর্ষিতার বাড়ি যাননি বলে দাবি করেন। সাংবাদিকদের মাধ্যমে পুলিশ সোমবার রাতে খবর জেনে গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে এসআই এনামুল হক অভিযুক্তর বাবা রহিম চৌকিদারকে নিয়ে ধর্ষিতা স্কুল ছাত্রীর সাথে কথা বলেন।

এসআই এনামুল হক ধর্ষণের সত্যতা স্বীকার করে ধর্ষিতার বরাত দিয়ে এ প্রতিনিধিকে জানান, ধর্ষিতা তাকে বলেছে, রনজিত তাকে ধর্ষণ করেছে। এ সময় মাসুদ ও অন্য একজন সহযোগিতা করেছে। ধর্ষিতাকে থানায় আনা হয়েছে কি না জানতে চাইলে তিনি আরো বলেন, তাকে থানায় আনা হয়নি। মামলা করতে চাইলে তাদের থানায় আসতে বলা হয়েছে।

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
২৭ জুলাই, ২০২১ ইং
ফজর৪:০২
যোহর১২:০৫
আসর৪:৪৪
মাগরিব৬:৪৭
এশা৮:০৮
সূর্যোদয় - ৫:২৫সূর্যাস্ত - ০৬:৪২
পড়ুন