মেঘনায় ঝড়ে ডুবে গেছে ৬টি মালবাহী নৌযান
g বরিশাল অফিস০৮ আগষ্ট, ২০১৬ ইং
হিজলার মেঘনা নদীতে ঝড়ের কবলে পড়ে দুই দিনে ৬টি মালবাহী জাহাজডুবির ঘটনা ঘটেছে। নিমজ্জিত জাহাজের এক শ্রমিক নিখোঁজ রয়েছেন। জাহাজ মালিকরা জানিয়েছেন তাদের প্রায় ৪ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে।

হাফেজ মো. মোবাস্সার হোসেন নামের এক জাহাজ মালিক জানান, গত ২ আগস্ট সুনামগঞ্জ থেকে কয়লা ভর্তি করে তার এমভি মাহাদ্বিন নওশাদ-০১ কার্গো জাহাজটি ভোলার উদ্দেশে রওনা হয়। শুক্রবার সন্ধ্যায় জাহাজটি হিজলা সংলগ্ন মেঘনা নদীর মোহনায় পৌঁছলে হঠাত্ ঝড়ের কবলে পড়ে উল্টে যায়। স্টাফরা সাঁতরে তীরে উঠতে সক্ষম হলেও জাহাজটি নিমজ্জিত হয়েছে। তিনি জানান, একই সময় ৫শ গজের মধ্যে আরো একটি বালু ভর্তি কার্গো জাহাজ ও একটি বলগেট ঝড়ের কবলে পড়ে ডুবে যায়। এছাড়া শনিবার একই স্থানে আরো তিনটি জাহাজ ডুবে যাওয়ার খবর পাওয়া গেছে। জাহাজডুবির ঘটনায় এমভি মাহাদ্বিন নওশাদ-০১-এর মাস্টার আল আমিন হিজলা থানায় শনিবার বিকেলে একটি সাধারণ ডায়েরি করেছেন।

হিজলা থানার ওসি মো. মাসুদুজ্জামান ৬ মালবাহী নৌযান নিমজ্জিত হওয়ার কথা স্বীকার করে ইত্তেফাককে জানান, দুটি কার্গো জাহাজ ও একটি বলগেট শুক্রবার রাতে নিমজ্জিত হয়েছে। বাকি তিনটি নৌযান শনিবার নিমজ্জিত হয়। শনিবার রাত ১২টা পর্যন্ত এসব জাহাজডুবির ঘটনায় থানায় মোট ৪টি জিডি দায়ের হয়েছে। নিখোঁজদের ব্যাপারে ওসি জানান, এখন পর্যন্ত একজন নৌযান শ্রমিক নিখোঁজ রয়েছে বলে তার কাছে তথ্য রয়েছে। বাকিরা সকলেই সাঁতরে তীরে উঠতে সক্ষম হয়েছেন।

এদিকে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত  নিমজ্জিত কার্গোগুলো  উদ্ধারে কোনো পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি।  সমুদ্র পরিবহন অধিদপ্তরের বরিশাল অফিসের ইন্সপেক্টর নুরুল করিম জানান, পানির স্রোত বেশি হওয়ায় জাহাজের অবস্থান নিশ্চিত করা সম্ভব হচ্ছে না। পানির সে াত ও তুফান কমলে জাহাজ উদ্ধারে পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

 

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
৮ আগষ্ট, ২০১৯ ইং
ফজর৪:০৯
যোহর১২:০৫
আসর৪:৪১
মাগরিব৬:৪০
এশা৭:৫৯
সূর্যোদয় - ৫:৩১সূর্যাস্ত - ০৬:৩৫
পড়ুন