গোসাইরহাটে বন্যায় আট হাজার পানের বরজ ক্ষতিগ্রস্ত
উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ী ঢল ও অমাবশ্যার জোয়ারের প্রভাবে মেঘনা নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় শরীয়তপুরের গোসাইরহাটের আলাওলপুর, কোদালপুর, কুচাইপট্টি, গোসাইরহাট, নলমুড়ী, ইদিলপুর, নাগেরপাড়া ও সামন্তসার ইউনিয়নের নিম্নাঞ্চলের প্রায় ৫৫ গ্রামের  মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে।

গোসাইরহাটের প্রধান কৃষিপণ্য পানের বরাজ। এখানে প্রায় ৪০ হাজার পানের বরজ রয়েছে। এরই মধ্যে জোয়ারের পানিতে আট-নয় হাজার পানের বরজ তলিয়ে গেছে। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে আমন ধানের বীজতলা। অনেক পুকুর তলিয়ে পানিতে মাছ ভেসে গেছে। পানির তোড়ে মেঘনা নদীতে ভাঙন তীব্র আকার ধারণ করেছে।

ভাঙনকবলিত এলাকাগুলো হচ্ছে—আলাওলপুর, কোদালপুর, কুচাইপট্টি। এখানে প্রায় দু’শতাধিক পরিবার সহায়-সম্বল হারিয়ে খোলা আকাশের নিচে মানবেতর জীবন যাপন করছে। গোসাইরহাটের উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ সগীর হোসেন এরই মধ্যে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করেছেন।

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
৮ আগষ্ট, ২০১৯ ইং
ফজর৪:০৯
যোহর১২:০৫
আসর৪:৪১
মাগরিব৬:৪০
এশা৭:৫৯
সূর্যোদয় - ৫:৩১সূর্যাস্ত - ০৬:৩৫
পড়ুন