স্বাগত হে অতিথি
নিজের আঁকা ছবি, লেখা বই আর লাড্ডু নিয়ে এলেন মমতা
স্বাগত হে অতিথি
 

কলকাতা দমদম বিমানবন্দরে দেশ ছাড়ার আগে মমতা সাংবাদিকদের বলেছিলেন, ‘সবাই প্রার্থনা করুন, ভারত-বাংলাদেশ দুই দেশের মধ্যে সুসম্পর্ক যেন আরও সুন্দর, সুদৃঢ় ও দীর্ঘজীবী হয়। আগামী দিনে যাতে দুই দেশ ভালোভাবে মিলেমিশে কাজ করতে পারে সেই প্রার্থনা করুন। দুই দেশের মা-মাটি-মানুষ ভালো থাকুক সেই শুভকামনা করুন।’ বিমান ছাড়ার আগে পাইলট একটি চিরকুট নিয়ে হাজির মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে। মুখে স্মিত হাসি। চিরকুটটিতে চোখ বুলিয়ে মুখ্যমন্ত্রীও দৃশ্যত খুশি। বললেন, ‘বাহ!’ এয়ার ইন্ডিয়ার কলকাতা-ঢাকা রুটের এ দিনের নিয়মিত উড়ানটির জন্য ‘ভিআইপি’ মর্যাদা ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ সরকার। বিশেষ নিরাপত্তায় ওড়ার জন্য আজ সন্ধ্যায় এটির ধারে কাছে আর কোনো বিমানকে ওড়ার অনুমতি দেওয়া হবে না। বিমানটি ঢাকায় নামার সময়েও অন্য কোনো বিমান ওঠানামা করতে পারবে না। সেই বার্তাই লেখা পাইলটের হাতের ওই চিরকুটটিতে। মমতার সঙ্গে সফরসঙ্গী হিসেবে এসেছেন রাজ্যের মুখ্যসচিব সঞ্জয় মিত্র এবং স্বরাষ্ট্রসচিব বাসুদেব বন্দ্যোপাধ্যায়। সীমান্ত চুক্তি অনুসমর্থন বিনিময় অনুষ্ঠান ছাড়া অন্য কোথাও দেখা হয়নি মোদি ও মমতার। মোদি ছিলেন সোনারগাঁও হোটেলে। সেখানেই মমতার জন্যও ব্যবস্থা করা হয়েছিল। কিন্তু মমতার ইচ্ছায় পরে তার হোটেল পরিবর্তন করে রেডিসন নির্ধারণ করা হয়। এর আগে, ২০১১ সালের সেপ্টেম্বরে ভারতের তত্কালীন প্রধানমন্ত্রী ড. মনমোহন সিংয়ের সফরসঙ্গী হিসেবে আসার কথা থাকলেও শেষ মুহূর্তে তিস্তা চুক্তি ইস্যুতে ঢাকা সফর বাতিল করেন মমতা। যদিও গত ফেব্রুয়ারিতে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে ঢাকা সফরে আসেন মমতা। এবার তার উপস্থিতিতে তিস্তা চুক্তির অগ্রগতি হবে বলে আশা করা হয়েছিল। কিন্তু মমতা তিস্তা চুক্তি না করার শর্তে ঢাকা এসেছেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্য বেশ কিছু উপহার নিয়ে এসেছেন মমতা। এরমধ্যে আছে তার আঁকা ছবি, লেখা বই এবং শাড়ি ও কলকাতার একটি বিশেষ মিষ্টির দোকানের তৈরি লাড্ডু।  পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির ঢাকা সফর সীমান্ত চুক্তির রেটিফিকেশনের সঙ্গে যুক্ত ছিল। সীমান্ত চুক্তির রেটিফিকেশনের অনুষ্ঠানে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সাথে যোগ দেন মমতা। ঐতিহাসিক এ সীমান্ত চুক্তির দলিল হস্তান্তর অনুষ্ঠানে ভারতের প্রধানমন্ত্রী মোদির সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন তিনি। মূলত এজন্যই তার ঢাকা সফর। এদিকে ঢাকা সফরের ২৪ ঘণ্টা আগে কলকাতায় ঢাকা-আগরতলা বাসযাত্রার উদ্বোধন করেন মমতা ব্যানার্জি। গত বৃহস্পতিবার বিকালে পশ্চিমবঙ্গের প্রশাসনিক ভবন নবান্ন থেকে বাস সেবার উদ্বোধন করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। তিস্তা চুক্তির ক্ষেত্রেও চূড়ান্ত অনমনীয় নন মমতা। তার বক্তব্য, যে-চুক্তিই হোক, রাজ্যের ক্ষতি মেনে নেওয়া হবে না। উত্তরবঙ্গের চাষবাসের ক্ষতি মেনে নেওয়া যাবে না। আপাতত, আলোচ্য শুধু ছিটমহল চুক্তি। বাংলাদেশ সরকার খুশি, কারণ, মমতার সম্মতি ছাড়া এটা সম্ভব হত না। তাই চব্বিশ ঘণ্টার সফরকেও যথোচিত গুরুত্ব দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
৮ জুন, ২০২১ ইং
ফজর৩:৪৩
যোহর১১:৫৮
আসর৪:৩৮
মাগরিব৬:৪৭
এশা৮:১১
সূর্যোদয় - ৫:১১সূর্যাস্ত - ০৬:৪২
পড়ুন