সমস্যার ডিজিটাল সমাধানে জুবায়ের
মালিহা মরিয়ম তিতলী১৫ মে, ২০১৭ ইং
সমস্যার ডিজিটাল সমাধানে জুবায়ের
কলেজ পালিয়ে সাইবার ক্যাফেতে গিয়ে ইন্টারনেটে প্রোগ্রামিং শিখত জুবায়ের হোসেন। কলেজ পার হতে না হতেই সি-প্রোগ্রামিং করে ছিলেন প্রায় পুরটাই। বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি হয়ে প্রথম বর্ষের শুরুতেই সাধারণ মানুষকে আইনি সুবিধা দেওয়ার জন্য তৈরি করে ফেলেন ‘ল সাপোর্ট’ নামের একটি মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন। টিউশনির জমানো টাকা দিয়ে এই অ্যাপস তৈরি করেন। সে সময় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আয়োজিত আইটি ফেস্টে চ্যাম্পিয়ন হয় উদ্যোগটি। সেই থেকে পথচলা শুরু উদ্যোক্তা জুবায়ের হোসেনের। মানুষের জীবনমানকে উন্নত করতে এবং দেশকে ডিজিটাল বাংলাদেশ হিসেবে গড়ে তুলতে নিজের স্বপ্নকে একত্ব করেছে জুবায়ের। ভ্যাট চেকার, টপ টিউব, সিএনজি মিটার, ডিএসসি অ্যালার্ম ইত্যাদি অ্যাপস তৈরি করে মানুষের সমস্যার সমাধান করছে ডিজিটাল উপায়।

জনসাধারণকে বোকা বানিয়ে ভ্যাটের নামে অতিরিক্ত টাকা আয় করছে এমন অনেক প্রতিষ্ঠানই রয়েছে। ভুয়া মূসক নিবন্ধন নম্বর দেখিয়ে গ্রাহকের কাছ থেকে নিচ্ছে এই বাড়তি টাকা। তবে চাইলে হাতের মুঠোফোনটি ব্যবহার করে ‘ভ্যাট চেকার’ অ্যাপটির মাধ্যমে এমন ভুয়া মূসক নিবন্ধনকারী প্রতিষ্ঠানগুলোকে চিহ্নিত করতে পারেন। অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেম নির্ভর এই অ্যাপটি তৈরি করে উদ্যোক্তা জুবায়ের হোসেন ও আসিফ কামাল তুর্য। এ অ্যাপটির বিষয়ে জুবায়ের বলেন, ‘ক্রেতার কাছ থেকে ভ্যাটের নামে যে অর্থটা নেওয়া হয়, তা সরকারের কোষাগারে যাচ্ছে কি না, না বিক্রেতার নিজের পকেটে যাচ্ছে তা জানা যাবে এই অ্যাপটির মাধ্যমে। এই অ্যাপটির দ্বারা অবৈধভাবে ভ্যাট ফাঁকি দেওয়া বহু অসাধু ব্যবসায়ীর চুরির টাকা সরকারের কোষাগারে দিতে বাধ্য করি।’

এরই মধ্যে গত ২৩ জুলাই নয়াদিল্লিতে ‘ভ্যাট চেকার’ অ্যাপটি এমবিলিয়ন্থ অ্যাওয়ার্ড সাউথ এশিয়া ২০১৬ অর্জন করে। এই উদ্যোগ বাংলাদেশকে দক্ষিণ এশিয়ার ‘সেরা উদ্যোগ’-এর সম্মান এনে দিয়েছে। এছাড়া ব্র্যাক মন্থন ইনোভেশন অ্যাওয়ার্ডে চ্যাম্পিয়ন হয় জুবায়ের ও তুর্যের এই অ্যাপ। ভ্যাট চেকারের সহযোগিতায় গত এক বছরে কয়েক শত কোটি টাকার রাজস্ব ক্ষতি থেকে রক্ষা পেয়েছে আমাদের দেশ। প্রথম দিকে অর্থের সংকট থাকলেও এরমধ্যে ‘ভ্যাট চেকার’ টিমকে সরাসরি পৃষ্ঠপোষকতা এবং স্বীকৃতি দিয়েছে রাজস্ব বোর্ড। শুধু ভ্যাট চেকারই নয়, জুবায়ের হোসেনের অন্য কাজের মধ্যে ‘টপ টিউব’ অ্যাপটি অন্যতম। টপ টিউব সম্পর্কে জুবায়ের বলেন, ‘এই কাজটি আমাদের অন্য কাজগুলো থেকে একটু ভিন্ন। সারাবিশ্বের এত এত গানের মধ্যে থেকে পছন্দের গানগুলো খুঁজে বের করতে যেমন অনেক সময়ের প্রয়োজন, তেমনি কিছুটা কষ্টকরও হয়ে যায়। অ্যাপটিতে নতুন একটি অ্যালগরিদম ব্যবহার করা হয়েছে। টপ টিউবের মূল ফিচার হলো, প্রচুর সংখ্যক গান অ্যানালাইসিস করে সেরা গানগুলোকে আলাদা করা। অ্যাপটি প্রতি ১২ ঘণ্টায় ভার্চুয়াল ব্রেইনের সিদ্ধান্তের ওপর ভিত্তি করে সেরা গান বাছাই করে। পাশাপাশি ল্যাঙ্গুয়েজ বেজড ফিল্টারিংয়ের মাধ্যমে দিনের সেরা বাংলা, ইংরেজি, হিন্দি ও অ্যারাবিক গান খুঁজে বের করা যায়। শুধু তাই নয়, এতে রয়েছে টপ অব দ্য উইক ফিচার। যেখানে সপ্তাহের সেরা গানগুলো দেখতে পাবেন।’ জুবায়েরের মতে, টপ টিউব বাংলাদেশ ছাড়াও আন্তর্জাতিক প্ল্যাটফর্মের জন্য তৈরি করা হয়েছে। আন্তর্জাতিক অঙ্গনে টপ টিউবের গুরুত্ব দ্রুত ধরতে পেরেছে সে কারণে হয়তো দেশের তুলনায় দেশের বাইরে টপ টিউবের ব্যবহার বেশি।

সামাজিক অবস্থার পরিবর্তনের চিন্তা থেকেই ভ্যাট চেকারের পর সিএনজি মিটার অ্যাপটি তৈরি করে জুবায়ের। সিএনজি অটোরিকশার বাড়তি ভাড়া ও মিটার জালিয়াতি থেকে মানুষকে সচেতন করতে এবং প্রতারিত হওয়ার হাত থেকে রক্ষা পেতে এই অ্যাপটি কাজ করছে। ভবিষ্যত্ পরিকল্পনা জানতে চাইলে জুবায়ের বলেন, ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন নিয়ে এদেশের মানুষকে ডিজিটাল সেবা উপহার দেওয়ার জন্য কাজ করে যাব আজীবন।’

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
১৫ মে, ২০২১ ইং
ফজর৩:৫২
যোহর১১:৫৫
আসর৪:৩৩
মাগরিব৬:৩৬
এশা৭:৫৬
সূর্যোদয় - ৫:১৬সূর্যাস্ত - ০৬:৩১
পড়ুন