দুই টাকা ডোনেটে লক্ষ টাকার হাসি
০৪ জুন, ২০১৮ ইং
দুই টাকা ডোনেটে লক্ষ টাকার হাসি
>> মেহেদী হাসান গালিব

 

সংগঠনটির নাম গন্তব্য ইয়ুথ ফাউন্ডেশন। স্কুল-কলেজের এক ঝাঁক উদ্যমী তরুণ-তরুণী দ্বারা পরিচালিত এই সংগঠনটি বর্তমানে কাজ করে যাচ্ছে দুই টাকার বিনিময়ে সমাজের অসহায় মানুষদের মুখে লক্ষ টাকার হাসি ফোটাতে। আপাতদৃষ্টিতে বিষয়টা অবিশ্বাস্য মনে হলেও তা বাস্তবে রূপদান করার সহজ একটি সূত্র আবিষ্কার করে ফেলেছে এই সংগঠন। সংগঠনের ৭০ জন সদস্য প্রতিদিন স্কুল-কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় ও বিভিন্ন জায়গার ৫০ জন মানুষের কাছ থেকে সংগ্রহ করছে মাত্র দুই টাকা করে। ফলে দিনশেষে একজন সদস্যের সংগ্রহ হচ্ছে ১০০ টাকা এবং মোট সংগ্রহ ৭০০০ টাকা। এভাবে ঈদের আগ পর্যন্ত তাদের লক্ষ্যমাত্রা হচ্ছে প্রায় দেড় লাখ টাকা সংগ্রহ করা, যা দিয়ে খুব সহজেই তারা ষোলটি পরিবারকে স্বাবলম্বী করার ব্যবস্থা করতে পারবে। ফলস্বরূপ আমাদের পকেটের কোণায় পড়ে থাকা দুই টাকার ছেঁড়া নোটের বিনিময়ে হাসি ফুটে উঠবে ষোলটি পরিবারের সদস্যদের মুখে।

গন্তব্য ইয়ুথ ফাউন্ডেশন এই প্রজেক্টটির নাম দিয়েছে ‘শেয়ারিং হ্যাপিনেস ২০১৮’। ঈদের আনন্দ উঁচু-নিচু সকল শ্রেণির মানুষদের মাঝে ভাগ করে দেওয়ার লক্ষ্যেই কাজ করে যাচ্ছেন সংগঠনের তরুণ-তরুণীরা। গত দুই বছরে এই প্রজেক্টের মাধ্যমে পাঁচজনকে স্বাবলম্বী করে তুলতে সক্ষম হয়েছে তারা। এরই ধারাবাহিকতায় এবার ষোলজন বেকার মানুষকে স্বাবলম্বী করার ইচ্ছে আছে তাদের।

২০১৫ সালের ২৪ জুলাই কলেজপড়ুয়া চার শিক্ষার্থীর হাত ধরে শুরু হয়েছিল গন্তব্য ইয়ুথ ফাউন্ডেশনের পথচলা। উদ্যোক্তা এসএম সামাউন আফরাজ ফাহিমের ছোটবেলা কেটেছে উত্তরবঙ্গের দিনাজপুরে। অভাব-অনটনের মাঝে জীবনযাপন করার জন্য উত্তরবঙ্গের মানুষদের তখন বলা হতো ‘মঙ্গা’। ফাহিম ছোটবেলা থেকেই বেশ কাছ থেকে ওসব অসহায় ও দরিদ্র মানুষদের দুঃখ-কষ্ট দেখার সুযোগ পেয়েছিলেন। ঠিক তখন থেকেই তিনি নিজেকে প্রস্তুত করেছিলেন অসহায় মানুষদের সাহায্যের জন্য। আর এই সংকল্প থেকেই পরবর্তীতে প্রতিষ্ঠিত হয় গন্তব্য ইয়ুথ ফাউন্ডেশন। সংগঠনটির সহ-উদ্যোক্তারা হলেন মো. রাফাত, হিমেল সুলতানা ও মাশিয়াত তৌহীদ।

প্রথমদিকে শুধু উত্তরাঞ্চলে কাজ করলেও ধীরে ধীরে বৃদ্ধি পেয়েছে সংগঠনটির কাজের পরিধি। এরমধ্যে উত্তরাঞ্চলের বাইরের বেশ কয়েকটি জেলাতে শুরু হয়েছে তাদের কার্যক্রম। বর্তমানে ঢাকা জেলায় ৭০ জন, বগুড়া জেলায় ৪২ জন, দিনাজপুরে ২৭ জন, মাওয়ায় ১৫ জন এবং কুষ্টিয়ায় ২০ জন স্বেচ্ছাসেবী রয়েছে সংগঠনটির। ঈদের পর কুমিল্লা ও ঠাকুরগাঁওয়ে কাজ করার ইচ্ছা আছে গন্তব্য ইয়ুথ ফাউন্ডেশনের।

শীতবস্ত্র বিতরণ, সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের পড়ালেখায় সহযোগিতা, বেকারদের রিকশা-ভ্যান ও সেলাই মেশিন কিনে স্বাবলম্বী করার মাধ্যমে অসহায়দের জীবনমান উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে এই সংগঠন। ভবিষ্যতে একটি ড্রিম ভিলেজ প্রতিষ্ঠা করার ইচ্ছা আছে তাদের। যেই ভিলেজের সবাই হবে শিক্ষিত ও স্বাবলম্বী। কারিগরি শিক্ষায় শিক্ষিত করে দেশের বেকার জনগোষ্ঠীকে একটি দক্ষ মানবসম্পদে পরিণত করার লক্ষ্যে এগিয়ে যাচ্ছে গন্তব্য ইয়ুথ ফাউন্ডেশন।

 

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
৪ জুন, ২০১৯ ইং
ফজর৩:৪৪
যোহর১১:৫৭
আসর৪:৩৭
মাগরিব৬:৪৬
এশা৮:০৯
সূর্যোদয় - ৫:১০সূর্যাস্ত - ০৬:৪১
পড়ুন