লালন স্মরণোত্সব
০১ ডিসেম্বর, ২০১৬ ইং
লালন স্মরণোত্সব
রুমী খোন্দকার, পাবনা প্রতিনিধি

 

‘অনন্ত রূপ সৃষ্টি করলেন সাঁই, শুনি মানব রূপের উত্তম কিছু নাই’ নতুন প্রজন্মের মাঝে ফকির লালন সাঁইয়ের মানবতার বাণী ছড়িয়ে দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে পাবনায় শেষ হলো পঞ্চমবারের মতো ৩ দিনব্যাপী লালন স্মরণোত্সব। গত শুক্রবার সন্ধ্যায় শুরু হয় এই উত্সব।

রবিবার সন্ধ্যায় সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন পাবনা সদর আসনের সংসদ সদস্য গোলাম ফারুক প্রিন্স। অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. আল নকিব চৌধুরী, পুলিশ সুপার জিহাদুল কবির, লালন স্মরণোত্সব কমিটির আহ্বায়ক জাকির হোসেন প্রমুখ। এতে সভাপতিত্ব করেন লালন স্মৃতি পরিষদের সভাপতি অ্যাডভোকেট আজিজুল হক।

অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, লালন ছিলেন একজন ভাববাদী চেতনার মহামানব। যার কোনো একাডেমিক শিক্ষা ছিল না, কিন্তু তার রচিত গান নিয়ে সারাবিশ্বের বুদ্ধিজীবীরা গবেষণা করছেন। মানবতার মহান আদর্শ রয়েছে লালন দর্শনে। যে দর্শন অসাম্প্রদায়িক চেতনায় উদ্বুদ্ধ করে। পরে লালনের গান পরিবেশন করেন টুনটুন বাউল, আলতাফ ফকির ও বাউল নার্গিস। সমাপনী দিনের অনুষ্ঠান উপভোগ করতে সমাগম ঘটে অসংখ্য দর্শক-শ্রোতার।

লালন স্মৃতি পরিষদের উদ্যোগে পাবনার বীর মুক্তিযোদ্ধা রফিকুল ইসলাম পৌর মিলনায়তনে পঞ্চমবারের মতো এ উত্সবের আয়োজন করে স্থানীয় লালন স্মৃতি পরিষদ। লালন স্মরণোত্সবের আহ্বায়ক জাকির হোসেনের সভাপতিত্বে উত্সব উদ্বোধন করেন বরেণ্য সাংবাদিক আবেদ খান ও প্রখ্যাত লালনসঙ্গীত শিল্পী ফরিদা পারভিন। আবেদ খান বলেন, ‘লালন চিরদিন মানবতার জয়গান গেয়েছেন। আসাম্প্রদায়িক চেতনার পথ নির্দেশ করেছেন। লালন দর্শনই পারে অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়তে।’ ফরিদা পারভীন বলেন, ‘লালন আমার আমিত্বকে বিসর্জন দিতে বলেছেন। আমাদের দেশে যে সকল সাম্প্রদায়িক হামলার ঘটনা ঘটছে লালনের গানকে সঠিকভাবে বুঝলে কোনো মানুষের পক্ষে এ ধরনের কর্মকাণ্ডে অংশ নেওয়া সম্ভব নয়।’ এই ৩ দিন অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ অধ্যাপক কামরুজ্জামান, লালন গবেষক গোলাম রব্বানী, গাজী আব্দুল হাকিম, রেজাউল করিম মনি, নাসির চৌধুরী প্রমুখ।

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
১ নভেম্বর, ২০২১ ইং
ফজর৫:০৪
যোহর১১:৪৮
আসর৩:৩৫
মাগরিব৫:১৪
এশা৬:৩১
সূর্যোদয় - ৬:২৪সূর্যাস্ত - ০৫:০৯
পড়ুন