রিওতে শচীনের সঙ্গে ড. ইউনূসের সাক্ষাত্
ক্রিকেট ক্যারিয়ার শেষে সামাজিক কাজে আত্মনিয়োগ করবেন টেন্ডুলকার
g ইত্তেফাক রিপোর্ট০৮ আগষ্ট, ২০১৬ ইং
ব্রাজিলের রিও-তে শান্তিতে নোবেল জয়ী প্রফেসর ড. মুহাম্মদ ইউনূস ও ক্রিকেট কিংবদন্তি শচীন টেন্ডুলকার সঙ্গে সাক্ষাত্ করেছেন। স্টেডিয়ামের ভিআইপি বক্সে বসে অলিম্পিকের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান দেখার সময় সাক্ষাত্ করেন তাঁরা। এ সময় তাঁদের মধ্যে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা বলেছেন বলে জানা গেছে। গতকাল ইউনূস সেন্টারের দেয়া এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, আলাপকালে প্রফেসর ইউনূস শচীন টেন্ডুলকারকে বলেন, তিনি (টেন্ডুলকার) ঢাকার যে স্টেডিয়ামে তাঁর অনবদ্য শততম সেঞ্চুরির রেকর্ডটি করেন সেটা গ্রামীণ ব্যাংক ভবনের একেবারেই কাছে। টেন্ডুলকার এটি স্মরণ করেন; তাঁর জীবনের শ্রেষ্ঠতম অর্জনগুলোর একটি সেটি।

আলাপের এক পর্যায়ে প্রফেসর ইউনূস জানতে চান, টেন্ডুলকার তাঁর গৌরবময় ক্রিকেট ক্যারিয়ারের শেষে কী করতে চান। টেন্ডুলকার বলেন যে, তিনি সামাজিক কাজে আত্মনিয়োগ করার চেষ্টা করবেন। ইউনূস বলেন যে, টেন্ডুলকার একটি প্রবল সামাজিক শক্তি। ক্রিকেট প্রিয় দেশগুলোতে সব বয়সী কোটি কোটি মানুষের কাছে টেন্ডুলকার একটি বিরাট প্রেরণা। প্রফেসর ইউনূস সুবিধাবঞ্চিত মানুষদের জীবনমান উন্নয়নে টেন্ডুলকারকে তাঁর এ শক্তি ব্যবহার করতে বলেন। টেন্ডুলকারের ম্যানেজার নারায়ণ বলেন যে, তিনি বহু বছর আগে প্রফেসর ইউনূসের বই পড়েছিলেন এবং সৃষ্টিশীল শক্তিকে সম্পূর্ণ অপ্রচলিত কিন্তু সফল উপায়ে সমাজের কল্যাণে ব্যবহারের ঘটনায় অত্যন্ত উদ্দীপ্ত হয়েছিলেন।

প্রফেসর ইউনূস শচীন টেন্ডুলকারকে এবছরের ১৮-১৯ নভেম্বর মুম্বাইতে অনুষ্ঠেয় সোশ্যাল বিজনেস কান্ট্রি ফোরাম, ভারতের এবং ২০১৭ সালের ২৮-২৯ জুন ঢাকায় অনুষ্ঠেয় সোশ্যাল বিজনেস ডে’তে যোগদানের এবং একই সাথে বাংলাদেশে বহু বছর ধরে গড়ে তোলা বিভিন্ন সামাজিক ব্যবসা পরিদর্শনের আমন্ত্রণ জানান। টেন্ডুলকার ভারত ও বাংলাদেশে সামাজিক ব্যবসা অনুষ্ঠানগুলো সম্পর্কে গভীর আগ্রহ দেখান। তিনি সামাজিক ব্যবসা সম্পর্কে আরো বিস্তারিত জানার এবং ভারতে সামাজিক ব্যবসার তত্ত্ব ও চর্চার প্রসারে প্রফেসর ইউনূসের সাথে একসঙ্গে কাজ করার আগ্রহ প্রকাশ করেন।

শচীন টেন্ডুলকার বাংলাদেশের ক্রিকেট যেভাবে দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে তার ভূয়সী প্রশংসা করেন। তিনি বিশেষভাবে সাকিব আল হাসানের ক্রিকেট নৈপুণ্যের প্রশংসা করেন। বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের সম্পর্কে তিনি খুবই ইতিবাচক মন্তব্য করেন এবং তাদের চমত্কার পারফরমেন্সকে আরো এগিয়ে নিতে তিনি তাদেরকে সেরা আন্তর্জাতিক টিমগুলোর সাথে আরো বেশি করে খেলতে উত্সাহিত করেন।

উল্লেখ্য যে, আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটির আমন্ত্রণক্রমে শচীন টেন্ডুলকার রিও অলিম্পিকে এসেছেন।

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
৮ আগষ্ট, ২০১৯ ইং
ফজর৪:০৯
যোহর১২:০৫
আসর৪:৪১
মাগরিব৬:৪০
এশা৭:৫৯
সূর্যোদয় - ৫:৩১সূর্যাস্ত - ০৬:৩৫
পড়ুন