অর্থ আত্মসাত্
ডাক্তার ও ব্যাংকারসহ গ্রেফতার ৭
g ইত্তেফাক রিপোর্ট০৮ আগষ্ট, ২০১৬ ইং
অর্থ আত্মসাতের মামলায় এক ডাক্তার ও তিন ব্যাংক কর্মকর্তাসহ সাতজনকে গ্রেফতার করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। গতকাল রবিবার রাজধানীর সেগুনবাগিচা ও রাজশাহীর পুলিশ লাইন থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতারকৃতরা হলেন মেসার্স থ্রি স্টার অ্যান্ড কোম্পানির মালিক ডা. এম এ মান্নান, ইসলামী ব্যাংকের বংশাল শাখার সাবেক এসপিও মো. শামছুদ্দিন, সাবেক অ্যাসিস্ট্যান্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট মো. ইনামুল হক ও চাঁপাইনবাবগঞ্জের গ্রামীণ ব্যাংক চুক্তি শাখার সেন্টার ইনচার্জ মো. আবদুল কাইয়ুম। এ ছাড়া  ফরিদপুরের নিউ প্রাইম মাল্টিপারপাস কো-অপারেটিভ সোসাইটি লিমিটেডের সেক্রেটারি শম্পা রাণী সাহা, সাতক্ষীরার শ্যামনগর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক দুই সদস্য মো. আজিজুর রহমান ও আবুল কালাম আজাদকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

অভিযোগের বিষয়ে দুদক সূত্রে জানা যায়, আসামি ডা. এম এ মান্নান আরবান স্কাই লাইন লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আল-ফাত্তাহ হাবিবুল্লাহর সঙ্গে জনৈক ব্যক্তিকে ভুয়া আলী হোসেন সাজিয়ে স্বাক্ষর জাল করে ইসলামী ব্যাংকের বংশাল শাখায় মর্টগেজ রেখে কর্মকর্তাদের সহযোগিতায় জাল-জালিয়াতির মাধ্যমে  ১২ কোটি ১৩ লাখ ৩৭ হাজার ৫৯১ টাকা লোন উত্তোলনপূর্বক আত্মসাত্ করে। ওই মামলায় গতকাল ডা. মান্নান ও ইসলামী ব্যাংকের শামছুদ্দিন, মো. ইনামুল হককে গ্রেফতার করা হয়।

এদিকে  গ্রামীণ ব্যাংক  রাজশাহীর পুলিশ লাইন গেইট  থেকে  ৬ লাখ  ৯২ হাজার ৬১ টাকা  উত্তোলনপূর্বক আত্মসাতের  মামলায়  মো.  আবদুল কাইয়ুমকে দুদকের রাজশাহীর  সহকারী পরিচালক রিজিয়া খাতুন গ্রেফতার করা হয়।

এছাড়া ২০০২-২০০৩ অর্থবছরে গ্রামীণ অবকাঠামো সংস্কার কর্মসূচির ৮৫ হাজার ৫০০ টাকা তুলে নিয়ে প্রকল্পের কোনো কাজ না করে আত্মসাত্ করার অভিযোগে সাতক্ষীরার শ্যামনগর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক দুই সদস্য মো. আজিজুর রহমান ও আবুল কালাম আজাদকে শ্যামনগর থেকে গ্রেফতার করা হয়।

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
৮ আগষ্ট, ২০১৯ ইং
ফজর৪:০৯
যোহর১২:০৫
আসর৪:৪১
মাগরিব৬:৪০
এশা৭:৫৯
সূর্যোদয় - ৫:৩১সূর্যাস্ত - ০৬:৩৫
পড়ুন