শেখ হাসিনাকে মোদীর চিঠি
বিশেষ প্রতিনিধি১১ আগষ্ট, ২০১৭ ইং
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে একটি চিঠি দিয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। গতকাল বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার হর্ষবর্ধন শ্রিংলা শেখ হাসিনার কাছে এটি হস্তান্তর করেন। প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান। তবে চিঠির বিষয়বস্তু নিয়ে তিনি কিছু বলেননি।

প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতে নরেন্দ্র মোদী সরকারের তিন বছরের মূল্যায়ন নিয়ে লেখা ‘মার্চিং উইথ অ্যা বিলিয়ন’ নামে একটি বইও তুলে দেন ভারতীয় হাইকমিশনার। এটি লিখেছেন ইন্ডিয়া টুডে ম্যাগাজিনের জ্যেষ্ঠ সম্পাদক ও রাজনৈতিক বিশ্লেষক উদয় মাহুরকার।

ভারতীয় হাইকমিশনের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বইটিতে মোদী সরকারের তিন বছরে অবকাঠামো, পররাষ্ট্র, বিদ্যুত্ ও জ্বালানি, সামাজিক ক্ষেত্র, আর্থিক, কৃষি, ডিজিটাল প্রযুক্তিসহ বিভিন্ন বিষয়ে অগ্রগতি পর্যালোচনা করা হয়েছে।

বইটিতে পররাষ্ট্র নীতির উপর দৃষ্টিভঙ্গি অংশে বাংলাদেশকে নরেন্দ্র মোদী সরকারের অধীনে ভারতের প্রধান উন্নয়ন অংশীদার হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। এতে সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জিরো টলারেন্স নীতির প্রশংসা ও স্বীকৃতিরও উল্লেখ রয়েছে। দুই দেশের সীমান্ত চুক্তির সফল বাস্তবায়নে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ব্যতিক্রমধর্মী নেতৃত্ব এবং সহযোগিতার বিষয়েও গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে এই বইয়ে।

বইটি বিশ্বের সবচেয়ে বড় গণতন্ত্রের অগ্রগতি ও অর্জনের সময়োপযোগী দর্শন এবং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর অধীনে ভারত আঞ্চলিক উন্নয়নে চ্যাম্পিয়ন হয়ে থাকবে বলে এ সময় মন্তব্য করেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী।

সাক্ষাতে ভারতীয় হাইকমিশনার হর্ষবর্ধন শ্রিংলা গত এপ্রিলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভারত সফরের সময় স্বাক্ষরিত সমঝোতা স্মারক ও চুক্তির বাস্তবায়ন এবং অগ্রগতির কথা উল্লেখ করেন। তিনি দুই দেশের মধ্যে পারস্পরিক সহযোগিতার উদ্দেশ্যে দ্বি-পক্ষীয় সম্পর্ককে গতিশীল রাখতে প্রধানমন্ত্রীর উচ্চ পর্যায়ে মতবিনিময়ের প্রশংসা করেন। এ সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দ্বি-পক্ষীয় সম্পর্কের অগ্রগতির বিষয়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেন বলে বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়।

আরো জার্মান বিনিয়োগ চান প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সস্তায় শ্রম এবং অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা লুফে নিয়ে বাংলাদেশে আরো বিনিয়োগ করতে জার্মানির উদ্যোক্তাদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। সফররত জার্মান পার্লামেন্ট সদস্য ড. হ্যান্স পিটার উহি গতকাল প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তার কার্যালয়ে সাক্ষাত্ করতে গেলে শেখ হাসিনা এ আহ্বান জানান। বৈঠক শেষে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহ্সানুল করিম সাংবাদিকদের বলেন, বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী দুই দেশের মধ্যে অর্থনৈতিক সহযোগিতা ও দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন।

বৈঠকে শেখ হাসিনা জার্মান এমপিকে বলেন, তার সরকার বিদেশি বিনিয়োগকারীদের আকৃষ্ট করতে এবং অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি আরো বাড়াতে সারা দেশে একশটি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠা করছেন। তিনি বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময় জার্মানির ভূমিকার কথা স্মরণ করেন। প্রধানমন্ত্রী তার সাম্প্রতিক জার্মান সফরের প্রসঙ্গ উল্লেখ করে বলেন, বাংলাদেশ-জার্মান সম্পর্ক বর্তমানে খুবই চমত্কার।

বৈঠকে জার্মান এমপি ড. হ্যান্স জিটুজি ভিত্তিতে ই পাসপোর্ট প্রকল্প বিষয়ে দুই দেশের মধ্যে সমঝোতা স্বাক্ষরে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর প্রশংসা করেন। শেখ হাসিনা এ প্রসঙ্গে বলেন, তার সরকার ইতোমধ্যে এ প্রকল্পটি দ্রুত বাস্তবায়নে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দিয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রীর আন্তর্জাতিক বিষয়ক উপদেষ্টা ড. গওহর রিজভী, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী এম শাহরিয়ার আলম এবং প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
১১ আগষ্ট, ২০২০ ইং
ফজর৪:১১
যোহর১২:০৪
আসর৪:৪০
মাগরিব৬:৩৮
এশা৭:৫৬
সূর্যোদয় - ৫:৩২সূর্যাস্ত - ০৬:৩৩
পড়ুন