ঘরোয়া ক্রিকেটেই চোখ দুর্জয়দের
ঘরোয়া ক্রিকেটেই চোখ দুর্জয়দের
আজই শেষ হওয়া ২০১৪-১৫ মৌসুমে কোনোরকম হোঁচট না খেয়েই ঘরোয়া ক্রিকেট চালিয়েছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। তবে জাতীয় দলের টানা খেলা থাকলে দলগুলোর আপত্তির মুখে এমনটা চালানো খুব সোজা কাজ নয়। গতকাল ক্রিকেট অপারেশন্স কমিটির মিটিং শেষে চেয়ারম্যান নাঈমুর রহমান দুর্জয় বললেন, এসব আপত্তি সত্ত্বেও জাতীয় দলের টানা খেলার মধ্যেই ঘরোয়া ক্রিকেট চালিয়ে যেতে হবে; এর কোনো বিকল্প নেই।

নতুন কমিটি হওয়ার পর সভাশেষে জাতীয় দলের সাবেক এই অধিনায়ক বললেন, আপাতত বিসিবির কাছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার হলো ঘরোয়া ক্রিকেট, ‘আমরা ঘরোয়া ক্রিকেটকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিতে চাচ্ছি এখন পর্যন্ত। এরই মধ্যে বোর্ডে এটা নিয়ে আলাপ-আলোচনা হয়েছে। কোন কিছুতেই আমরা আমাদের যে ঘরোয়া ক্যালেন্ডার, এটাকে সরিয়ে রেখে আমরা কোন কিছু করব না। এমনকি জাতীয় দলের কোন ব্যস্ততা থাকলে তারা (ঘরোয়া ক্লাবগুলো) তাদের মত করে খেলা চালাবে। আর সূচীতে কোন ব্যস্ততা না থাকলে জাতীয় দলের খেলোয়াড়রা ঘরোয়া ক্রিকেটে অংশ নেবে। অবশ্য বেশি চাপ হলে তখন পলিসিগত সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। আমরা চাচ্ছি আমাদের ঘরোয়া ক্রিকেট আমাদের সিডিউল অনুযায়ী চলবে।’

দুর্জয় বললেন, তিনি বোঝেন যে, দলগুলো জাতীয় দলের তারকাদের চায়। কিন্তু বাস্তবতাও বুঝতে বলছেন তাদের। এখন জাতীয় দলকে বছরের বেশিরভাগ সময় পাওয়া যাবে না, এটাই স্বাভাবিক, ‘আমরা বোর্ডের অনেকে ক্লাবকে প্রতিনিধিত্ব করি, কেউ বিভাগকে প্রতিনিধিত্ব করি। এখন বিভাগগুলোতে জাতীয় লিগ হচ্ছে। ফ্রাঞ্চাইজিভিত্তিক বিসিএল হচ্ছে। আমরা সবাইকে বোঝানোর চেষ্টা করছি। এভাবে (জাতীয় দলের অপেক্ষায়) আর বেশি দিন আমাদের পক্ষে চলা সম্ভব নয়। এই বছরই আমাদের কতগুলো হোম সিরিজ হচ্ছে। কাজেই জাতীয় দলের জন্য যদি আমরা টানাপোড়েনের মধ্যে থাকি, জাতীয় দলের খেলোয়াড় ছাড়া আমরা ক্লাব ক্রিকেট কিংবা ডিভিশন না খেলতে চাই; তাহলে খুব সমস্যা। জাতীয় দলকে জাতীয় দলের ব্যস্ততায় থাকতে দিতে হবে। একই সঙ্গে আমাদের ঘরোয়া ক্রিকেট করতে হবে। এতে করে ক্লাবগুলো নতুন খেলোয়াড় তৈরি করার সুযোগ পাবে।’

দুর্জয় শুধু মৌসুমের ফাঁকা সময়ে বিশেষ অধিকার দেয়ার পক্ষে প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটকে। যদিও বাংলাদেশে রেওয়াজ হলো ঢাকা প্রিমিয়ার লিগকে সেই সুযোগ দেয়া; যখন জাতীয় দলের তারকাদের নিয়ে লিগ করতে পারে তারা। কিন্তু সেটাও আর সম্ভব হবে বলে মনে করেন না দুর্জয়, ‘শুধু ঢাকা প্রিমিয়ার লিগকে কিন্তু গুরুত্ব দেয়া যাবে না। এটা আমরা জানি এটা আমাদের সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয় লিগ। একই সঙ্গে আমাদের লংগার ভার্সনগুলোও কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ। সেখানে কিন্তু একটা সিজনের বিষয় থাকে। লংগার ভার্সনগুলো যদি আমরা শীতের সময় করতে পারি, সেক্ষেত্রে উইকেটের একটা ব্যাপার থাকে।’

ক্রিকেট অপারেশন্সের প্রধান হিসেবে জাতীয় দল নিয়েই বেশি মাথা ঘামাতে হচ্ছে দুর্জয়কে। জাতীয় দল আগামী মাস থেকে টানা তিনটি সিরিজ খেলবে ভারত, দক্ষিণ আফ্রিকা ও অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে। এরপর ওয়েস্ট ইন্ডিজের আসাটাও মোটামুটি চূড়ান্ত বলে বললেন দুর্জয়, ‘ওয়েস্ট ইন্ডিজের সঙ্গে সিরিজ খেলার একটা পরিকল্পনা চলছে। ওরা একভাবে চাচ্ছে আবার আমরা অন্যভাবে চাচ্ছি। ওরা চাচ্ছে ৪টি টি-টোয়েন্টি খেলতে। আমরা চাচ্ছি দুই ওয়ানডের সঙ্গে দুটি টি-টোয়েন্টি খেলতে। এটা আরেকবার নিজেদের মধ্যে আলোচনা করেছি। কোনটা আমাদের জন্য বেশি ভাল হয়। সেভাবেই আগাচ্ছি।’

জাতীয় দলের জন্য আরও একটা সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছে ক্রিকেট অপারেশন্স। চেয়ারম্যান জানালেন, খুব দ্রুত তারা স্থায়ী ম্যানেজার নিয়োগ দেবেন, ‘খুব তাড়াতাড়ি আমরা একজন টিম অপারেশন ম্যানেজার নিয়োগ দিব। আমাদের পলিসির মাধ্যমেই সব কিছু হবে। বোর্ডের কেউ একজনই থাকবে এটা নয়। এটা নিয়ে আলাপ হয়নি। প্রফেশনাল হবে।’

এর বাইরে ‘এ’ দলকে নিয়েও ব্যাপক পরিকল্পনায় বসতে চাচ্ছেন দুর্জয়রা, ‘ভবিষ্যত্ পরিকল্পনা বলতে ‘এ’ দলটাকে নিয়ে। ‘এ’ দলটাকে নিয়ে আমরা পর্যায়ক্রমে কিভাবে আরও বেশি প্রোগ্রাম করতে পারি। কাদের আমরা আমন্ত্রণ জানাতে পারি। আমাদের কোথায় কোথায় যাওয়ার সম্ভাবনা আছে। এগুলো কিভাবে কনফার্ম করা যায়, সেগুলো আমরা আলাপ করেছি।’

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
৩১ মে, ২০২১ ইং
ফজর৩:৪৪
যোহর১১:৫৬
আসর৪:৩৬
মাগরিব৬:৪৪
এশা৮:০৭
সূর্যোদয় - ৫:১১সূর্যাস্ত - ০৬:৩৯
পড়ুন