বাংলাদেশ-ভারত আবার মুখোমুখি
সাফ অনূর্ধ্ব-১৯ সেমিফাইনাল আজ
সোহেল সারোয়ার চঞ্চল২৭ আগষ্ট, ২০১৫ ইং
বাংলাদেশ-ভারত আবার মুখোমুখি
কাঠমান্ডুতে সাফের (অনূর্ধ্ব-১৯) সেমিফাইনালে আবার সেই ভারতের মুখোমুখি হচ্ছে বাংলাদেশ। বয়সের কথাটা বাদ দিলে ফুটবল মাঠে আবার বাংলাদেশ ভারত লড়াই। ক’দিন আগে সিলেটের মাঠে অনূর্ধ্ব-১৬ সাফে বাংলাদেশ ভারত দুই বার মুখোমুখি হয়েছিল। গ্রুপের ম্যাচে (২-১) হারানোর পর ১৮ আগস্ট ফাইনালে টাইব্রেকারে ভারতকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল বাংলাদেশের খুদে ফুটবলাররা। ঠিক যেন নয় দিনের মাথায় আবার ভারত বাংলাদেশ লড়াই করবে আজ। এবার নিরপেক্ষ ভেন্যুতে খেলা হচ্ছে।

নেপালের ললিতপুরে আনফা একাডেমির টার্ফে ‘এ’ গ্রুপ রানার্সআপ বাংলাদেশ এবং ‘বি’ গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন ভারতের দ্বিতীয় সেমিফাইনাল ম্যাচটা শুরু হবে বিকাল পৌনে চারটায়।

ম্যাচ নিয়ে দুই শিবিরেই উত্তেজনা আছে বলে জানা গেছে। নেপালে খেলতে যাওয়া ভারতীয় ফুটবল দলের মধ্যে সিলেটে সাফের ট্রফি হারানোর জ্বালা রয়েছে। ছোটদের ক্ষতে পরশ বুলাতে চায় অনূর্ধ্ব-১৯ ফুটবলাররা। যতদূর জানা গেছে তারা মুখে প্রতিশোধের কথা বলছেন না তবে দুই ম্যাচ হেরে যাওয়ার ছোটদের কষ্টটা ভুলতে পারছেন না। ভারতীয় শিবিরের উত্তাপ টের পাচ্ছেন বাংলাদেশের যুব দলের কোচ সাইফুল বারী টিটু। তার আরো একটা কারণও আছে। ভারতের বর্তমান ফুটবল দলটি নাকি বেশ শক্তিশালী। তাদের খেলার ধরনটাও অনেক উন্নত হয়েছে। সাইফুল বারী টিটু নেপাল থেকে ঢাকায় সংবাদ মাধ্যমের সাথে ফোনে কথা বলেছেন। তার দেখায় সাফ (অনূর্ধ্ব-১৯) চ্যাম্পিয়নশিপে এখন সবচেয়ে শক্তিশালী দল ভারত। ভারতের ম্যাচগুলো দেখেছেন টিটু। ওরা খুব দ্রুত জায়গা বদল করে। ৪-২-২ ফরমেশনে খেলছে। ছোটখাটো জায়গাগুলোতে সূক্ষ্মকাজ করার সক্ষমতা আছে দলের খেলোয়াড়দের মধ্যে। বাংলাদেশ ৪-৩-৩ ফরমেশনে খেললেও প্রয়োজনে একজন স্ট্রাইকার বাড়িয়ে দিয়ে আক্রমণ করার জায়গা আরো বেশি জোরদার করতে পারেন টিটু। তিনি বলছেন, ‘আমরা খেলাটা গড়ে তুলি। এটা দলের জন্য ভালো। তবে কিছু কিছু জায়গা আমাদের যে ঘাটতি আছে তা পূরণ করতে সময় লাগবে। তবে এখন যতটা কম ভুল করা যায় সেটাই গুরুত্বপূর্ণ দলের জন্য।’

সাফের সেমিফাইনাল হলেও ভারতের মতো বাংলাদেশের কাছে আজই ‘ফাইনাল’ মনে করছেন কোচ টিটু।

টিটুর কাছে একটা প্রশ্ন উঠেছিল, অনূর্ধ্ব-১৬ সাফে বাংলাদেশকে শিরোপা এনে দিয়েছেন কোচ সৈয়দ জিলানী। টিটুর কাছে এটা চাপ কিনা। টিটু সহজ সাবলীলভাবে বলেন দিলেন, ‘অনূর্ধ্ব-১৬ ফুটবল এবং অনূর্ধ্ব-১৯ ফুটবলের মধ্যে তুলনা চলে না। দুইটা দুই রকম বিষয়। দুই দলের মধ্যে বয়সের বিরাট পার্থক্য রয়েছে। ১৬ বছর খেলোয়াড়রা অনেক ধাপ অতিক্রম করতে হবে। আর অনূর্ধ্ব-১৯ ফুটবলাররা জাতীয় দলের দরজায় কড়া নাড়ে প্রবেশ করার জন্য।’ টিটু জাতীয় দলের সহকারী কোচ, ডাচ কোচ ক্রুইফের সহকারী। অনূর্ধ্ব-১৯ দলের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে তাকে। টিটু এটাকে উপভোগ করছেন। কারণ জাতীয় দলের যারা কড়া নাড়ছেন তারা কতোটা মানিসকভাবে পরিপক্ব সেটা জানার সুযোগ থাকে কোচদের। বাংলাদেশের ফুটবলে এখন ভালো একটা সময় যাচ্ছে। বয়স ভিত্তিক ফুটবলে অনেক খেলোয়াড় উঠে আসার গল্পটা যেমন তৈরি হচ্ছে তেমনি সাফল্যটাও আসছে।

সাফ অনূর্ধ্ব-১৯ ফুটবলের বাংলাদেশ ‘এ’ গ্রুপে খেলছে। গ্রুপের শেষ ম্যাচে নেপালের বিরুদ্ধে ম্যাচের শেষ সেকেন্ডে গোল হজম করে হেরে গেলেও খেলোয়াড়দের মধ্যে আত্মবিশ্বাস বেড়েছে। যেটা আজ ভারতের বিরুদ্ধে ম্যাচ কাজে লাগাতে পারে বলে মনে করছেন কোচ টিটু। প্রথম ম্যাচে ভুটানকে হারিয়ে শেষ ম্যাচে নেপালের বিরুদ্ধে দুর্দান্ত লড়াই বাংলাদেশের মান্নাফ রাব্বী, রোহিত সরকার, ইব্রাহিমদেরকে বাদগি সাহস দিচ্ছে, বাড়তি প্রেরণা দিচ্ছে। চ্যালেঞ্জ নিয়ে আজ ভারতের বিরুদ্ধে সেমিফাইনালে মাঠে নামবে বাংলাদেশ।

এর আগে একই মাঠে প্রথম সেমিফাইনালে মুখোমুখি হবে ‘এ’ গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন নেপাল এবং ‘বি’ গ্রুপ রানার্সআপ আফগানিস্তান।  ২৯ আগস্ট ফাইনাল।    

 

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
২৭ আগষ্ট, ২০১৯ ইং
ফজর৪:২০
যোহর১২:০১
আসর৪:৩৩
মাগরিব৬:২৫
এশা৭:৪০
সূর্যোদয় - ৫:৩৮সূর্যাস্ত - ০৬:২০
পড়ুন