গোপালগঞ্জে দর্শক সমাদর পেল ফুটবল
গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি০৮ ডিসেম্বর, ২০১৬ ইং
গোপালগঞ্জে দর্শক সমাদর পেল ফুটবল
সদ্য সমাপ্ত বাংলাদেশ ফুটবল লিগের গোপালগঞ্জ পর্বে খেলাগুলো দেখতে স্থানীয় শেখ ফজলুল হক মণি স্টেডিয়ামে দর্শকের ঢল নেমেছিল। প্রতিদিনই এই স্টেডিয়ামে খেলা দেখতে প্রচুর দর্শক সমাগম ঘটে। 

এবারের পেশাদার ফুটবল লিগে গোপালগঞ্জ পর্বের আগে সিলেট, ময়মনসিংহ এবং চট্টগ্রামেও খেলা হয়েছে। কিন্তু দর্শকদের এমন অভূতপূর্ব সাড়া মিলেছে শুধু গোপালগঞ্জেই। এ তথ্য জানিয়েছেন আয়োজকরাই।

টিম বিজেএমসি ও উত্তর বারিধারা ক্লাবের লড়াই দিয়ে ১ ডিসেম্বর শুরু হয়েছিল গোপালগঞ্জ ভেন্যুর খেলা। গত মঙ্গলবার চির প্রতিদ্বন্দ্বী আবাহনী-মোহামেডানের খেলা দিয়ে শেষ হয় এ পর্বটি।

শেখ মণি স্টেডিয়ামে ছয়টি খেলাতেই ব্যাপক দর্শক সমাগম হয়। এর মধ্যে আবাহনী মোহামেডানের ম্যাচে তিল ধারণের ঠাঁই ছিল না। ধারণা করা হয়, আবাহনীর ২-১ গোলের জয়ে শেষ হওয়া খেলাটিতে বিপুল সংখ্যক দর্শক মাঠে এসেছিলেন।

এমনিতে স্টেডিয়ামটির ধারণক্ষমতা পাঁচ হাজার। কিন্তু এ খেলাটি শুরুর আগেই স্টেডিয়ামের দুই পাশের গ্যালারি কানায় কানায় ভরে যায়। মাঠের চারপাশের লোহার ফেঞ্চিং ঘেঁষেও দাঁড়িয়ে ছিল কয়েক হাজার দর্শক। দেশের দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ক্লাব আবাহনী-মোহামেডানের মহারণ তাদের বিশেষ আকর্ষণে টেনে এনেছিল মাঠে। কারো হাতে ভুভুজেলা, কারো হাতে লেখা প্ল্যাকার্ডে ‘আমরা আবাহনী, গোপালগঞ্জকে আবাহনীর হোম ভেন্যু চাই। দর্শকদের হৈচৈ, ভুভুজেলা আর বাঁশির শব্দে মাঠে উত্সবমুখর পরিবেশ সৃষ্টি হয় সেদিন।

গোপালগঞ্জে খেলাগুলো প্রসঙ্গে কোটালীপাড়া উপজেলার শুয়াগ্রামের সোহাগ হালদার বলেন, বঙ্গবন্ধু তনয় শেখ কামালের আবাহনী আমাদের ক্লাব। লি টাক ও সানডের খেলা আমাদের মন ভরিয়েছে। আবাহনী আমাদের একটি উত্সবমুখর সন্ধ্যা উপহার দিয়েছে। এছাড়া শেখ রাসেল, শেখ জামাল, ব্রাদার্স ইউনিয়ন, রহমত গঞ্জ, ফেনী সকার, চট্টগ্রাম আবাহনীর খেলা আমাদের হূদয় কেড়েছে। প্রতি বছরই এখানে বিপিএলের ভেন্যু করা হলে  দর্শক সমাগম আরো বাড়বে।

বরিশালের মোঃ আরিফুর রহমান, যশোরের অরূপ বিশ্বাস, বাগেরহাটের মজিবর রহমান, খুলনার মিঠুন বিশ্বাস, নড়াইলের মারুফ হোসেন এই ক’দিনের খেলাগুলো দেখেন। এই দর্শকরা জানান, তাদের এলাকা থেকে অনেকেই এক সাথে এখানে ছয় দিন ম্যাচ দেখতে এসেছিলেন। প্রতিটি ম্যাচই খুবই ভালো হয়েছে।

গোপালগঞ্জ জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক বলেন, চট্টগ্রাম, সিলেট, ময়মনসিংহেও প্রিমিয়ার লিগের ম্যাচ হয়েছে। কিন্তু দর্শকদের এমন অভূতপূর্ব সাড়া মিলেছে শুধু গোপালগঞ্জেই।

আবাহনীর ইংলিশ ফরোয়াড লি টাক বলেন, গোপালগঞ্জে আমরা দর্শকদের উত্সাহ পেয়েছি। এটি আবাহনীর প্রতিষ্ঠাতা শেখ কামালের পৈতৃক ভিটার মাঠ। আমি বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে জেনেছি। এ মাঠে জয় পেয়ে আমি বেশি উচ্ছ্বসিত।

আবাহনীর সানডে বলেন, জয়ের পর দর্শক সমর্থকরা অটোগ্রাফ নিয়েছে। সেলফি তুলেছে। এটি আমার জন্য নতুন অভিজ্ঞতা। বাংলাদেশের মধ্যে গোপালগঞ্জের ভরা মাঠে আমি উজাড় করে ফুটবল খেলেছি।

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
৮ নভেম্বর, ২০১৯ ইং
ফজর৫:০৭
যোহর১১:৫১
আসর৩:৩৬
মাগরিব৫:১৫
এশা৬:৩৩
সূর্যোদয় - ৬:২৭সূর্যাস্ত - ০৫:১০
পড়ুন