নাঈমের ধৈর্য রাজ্জাকের ঝড়
স্পোর্টস রিপোর্টার১৪ ফেব্রুয়ারী, ২০১৭ ইং
নাঈমের ধৈর্য রাজ্জাকের ঝড়
চলমান বাংলাদেশ ক্রিকেট লিগের (বিসিএল) তৃতীয় রাউন্ডের তৃতীয় দিনটা ছিল জাতীয় দলের বাইরে থাকা দুই ক্রিকেটারদের নিজেদের প্রমাণের দিন। ফতুল্লার খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামে পূর্বাঞ্চলের বিপক্ষে উত্তরাঞ্চলের ডান হাতি ব্যাটসম্যান নাঈম ইসলাম ২২৬ বলে ৮৫ রানের এক ইনিংস খেলেন।  তৃতীয় দিন শেষে উত্তরাঞ্চলের সংগ্রহ ৬ উইকেটে ২৭৬ রান। এখনো ২১৪ রানে পিছিয়ে আছে দলটি।

অন্যদিকে, বিকেএসপির তিন নম্বর মাঠে ঠিক নাঈমের বিপরীতধর্মী ব্যাটিং করেছেন দক্ষিণাঞ্চলের আব্দুর রাজ্জাক। অধিনায়ক ৬১ বলে ৫টি ছক্কা ও ৬টি চারে করেন ৭৬ রান। এই সুবাদে দক্ষিণাঞ্চল দ্বিতীয় ইনিংসে করেছে ৩১৭ রান।

ফতুল্লায় বিনা উইকেটে ২৮ রান নিয়ে খেলা শুরু করে উত্তরাঞ্চল। নাজমুল হোসেন ও জুনায়েদ সিদ্দিক দলকে নিয়ে যান ৬১ পর্যন্ত। এরপরই ছন্দপতন, ৫ রানের মধ্যে ফিরে যান দুই উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান ও জহুরুল ইসলাম।

নাঈমের সংগ্রামের শুরুও তখন থেকেই। বেশিক্ষণ তাকে সঙ্গ দিতে পারেননি নাসির হোসেন। উইকেটরক্ষক ধীমান ঘোষ ফিরেন ৭১ রানের জুটি গড়ে। দলের সংগ্রহ দুইশ পার হওয়ার পর বিদায় নেন আরিফুল হক। পূর্বাঞ্চলের ছয় বোলার নেন একটি করে উইকেট। ছয় উইকেট হারিয়ে ২৭৬ রান করা উত্তরাঞ্চলের নাঈম ৮৫ ও সোহরাওয়ার্দী শুভ ৩৫ রান করে অপরাজিত। এই দুই ব্যাটসম্যান ১৯.৫ ওভারে গড়েছেন ৬৪ রানের জুটি। নাঈমের ইনিংসটিতে ছিল ১০টি চার।

বিকেএসপিতে আগের দিন ম্যাচে শতক ও ১০ উইকেট নেওয়ার কৃতিত্ব দেখিয়েছেন শুভাগত হোম চৌধুরী। তারপরও স্বস্তিতে নেই তার দল।

৩৯ রানে পিছিয়ে থেকে দ্বিতীয় ইনিংস শুরু করে দক্ষিণাঞ্চল। শাহরিয়ার নাফীসের ৭২ ও তুষার ইমরানের ৪৪ রানের পরও ১৯৫ রানে ৭ উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে দলটি। সেখান থেকে দক্ষিণাঞ্চল ৩১৭ পর্যন্ত যায় রাজ্জাকের আক্রমণাত্মক ব্যাটিংয়ে। তার ৭৬ রান করা রাজ্জাকের সঙ্গে নবম উইকেটে ৮০ রানের জুটি গড়া রুবেল হোসেন অপরাজিত থাকেন ২০ রানে। প্রথম ইনিংসে ৬ উইকেট নেওয়া শুভাগত হোম চৌধুরী ৭৭ রানে নেন ৪ উইকেট। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে এই প্রথম ম্যাচে ১০ উইকেট পেলেন তিনি। বাঁ-হাতি স্পিনার তৈয়বুর রহমান ৪ উইকেট নেন ৫২ রানে।

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
১৪ ফেব্রুয়ারী, ২০২১ ইং
ফজর৫:১৬
যোহর১২:১৩
আসর৪:১৭
মাগরিব৫:৫৭
এশা৭:১০
সূর্যোদয় - ৬:৩২সূর্যাস্ত - ০৫:৫২
পড়ুন