বাংলাদেশ ফাইনালে সঙ্গে ভারত
স্পোর্টস রিপোর্টার২০ ডিসেম্বর, ২০১৭ ইং
বাংলাদেশ ফাইনালে সঙ্গে ভারত
দুপুরেই নিশ্চিত হয়ে গিয়েছিল সাফ অনূর্ধ্ব-১৫ নারী ফুটবলের ফাইনালে ওঠার টিকিট। বাংলাদেশ ৩-০ গোলে ভুটানকে হারিয়ে ফাইনাল নিশ্চিত করে এক ম্যাচ হাতে রেখে। বাংলাদেশের জয়ের পর মাঠের আকর্ষণ রয়ে গিয়েছিল। দ্বিতীয় খেলায় ভারত ও নেপাল নামবে। ভারত জিতলে বাংলাদেশের সঙ্গে ভারতের ফাইনালে যাওয়াটাও নিশ্চিত হবে। কমলাপুর স্টেডিয়ামে দুপুরের ম্যাচে ভারত ১০-০ গোলে হারিয়েছে নেপালকে। ভারত এবং বাংলাদেশ দুই খেলায় ৬ পয়েন্ট করে পেয়ে ফাইনালে উঠা নিশ্চিত করল এক ম্যাচ হাতে রেখে।

সাফের বাকি যে দুটি দল আছে নেপাল এবং ভুটান সেই দুটি দল নিজেদের মধ্যে এখন ম্যাচ খেলবে আগামীকাল বেলা আড়াইটায়। একই দিনে সাড়ে ১১টায় বাংলাদেশ ও ভারত শেষ ম্যাচে লিগ ম্যাচে মুখোমুখি হবে। এটাই হবে ফাইনালের আগে ফাইনালের রিহার্সাল।

নেপালের বিপক্ষে বাংলাদেশ ৬-০ গোলে জিতলেও ভুটানের বিপক্ষে গোল সংখ্যা কম। মাত্র ৩-০। গোলের সংখ্যা কম হলেও ভুটানের বিপক্ষে বাংলাদেশ নজরকাড়া ফুটবল খেলেছে। দেশের নারী ফুটবলে যারা আগামী দিনে প্রতিনিধিত্ব করবেন সেই সব খুদে নারী ফুটবলাররা মনে দাগ কাটার মতো নৈপুণ্য দেখিয়েছেন। দুর্দান্ত ফুটবল খেলছেন। মনিকা, তহুরা, মারজিয়া, অনুচিং, নিলা, নাজমা, মারিয়াদের পুরো খেলাটা হয়েছে ভুটানের সীমানায়। প্রথম ৩০ মিনিট পর্যন্ত বাংলাদেশের গোলকিপার মাহমুদা আক্তার বল ধরেননি। এমনকি একটি বারও বল মাঝ মাঠ পেরিয়ে বাংলার সীমানায়ও আসেনি। তার আগেই ১৩ মিনিটে গোল পায় বাংলাদেশ। রাইট উইঙ্গার মারজিয়া কর্নার করেন বামপ্রান্ত হতে। নিজের রক্ষণভাগ থেকে উঠে গিয়ে কর্নারের বল হেড করে গোল করেন আঁখি খাতুন ১-০। গোল দেখে স্টেডিয়ামের দর্শক লাফিয়ে উঠেছেন।

৫৬ মিনিটে আবার সেই আঁখি খাতুন। এবারো সেই মারজিয়া। আবার কর্নার। মারজিয়ার কর্নারের বল আঁখির পায়ে পড়লে অসাধারণ দক্ষতায় বাঁ পায়ে ফ্লিক করে চোখের পলকে বল ভুটানের জালে যায় ২-০। হ্যাটট্রিকের সুযোগ নিতে পারেননি আঁখি। তিন বার ফ্রিকিক করে বল বাইরে রেখেছেন নিজেই। কোচ গোলাম রাব্বানী ছোটন খেলা শেষে বলছিলেন আঁখির পায়ে অনেক শক্তি। পওয়ারফুল শট করতে পারে। কিন্তু পাওয়ারফুল শট না করে আঁখি বলটাকে চিপ করে দিলে গোল হবে কিভাবে।’

নেপালের বিপক্ষে হ্যাটট্রিক করা তহুরা খাতুনকে সাজেদা খাতুনকে নামানো হয় ৬৬ মিনিটে। খেলার ৭৯ মিনিটে মারজিয়াকে তুলে নিয়ে ঋতু পর্ণা চাকমাকে নামান কোচ। ৭৯ মিনিটেই সাজেদা খাতুন খেলার তৃতীয় গোল করেন ৩-০।

বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৫

মাহমুদা আক্তার, আনাই মগিনি, শামসুন নাহার, নাজমা, আঁখি খাতুন, নিলা, মনিকা চাকমা, মারিয়া মান্ডা (অধিনায়ক), আনুচিং মগিনি, তহুরা খাতুন (সাজেদা খাতুন), মারজিয়া (ঋতু পর্ণা চাকমা)। রেফারি ঃ অঞ্জনা রায় (নেপাল)।

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
২০ নভেম্বর, ২০২১ ইং
ফজর৫:১৪
যোহর১১:৫৬
আসর৩:৪০
মাগরিব৫:১৯
এশা৬:৩৭
সূর্যোদয় - ৬:৩৫সূর্যাস্ত - ০৫:১৪
পড়ুন