খেলার নগরী কলম্বো
জান-ই-আলম১১ মার্চ, ২০১৮ ইং
খেলার নগরী কলম্বো
কলম্বো থেকেমাইতল্যান্ডের গোটা এলাকা জুড়ে মানুষের স্রোত। সবার গন্তব্য সিংহলিজ স্পোর্টস ক্লাব মাঠ। রঙ বেরঙের সাজে আবাল বৃদ্ধবণিতা প্রাণের টানেই যেন ঢুকছেন স্টেডিয়ামে। তীব্র শব্দে বেজে চলেছে গান। গ্যালারিতে দর্শকদের হর্ষধ্বনি মিলে কারো কথা শোনা প্রায় অসম্ভব। মাঠে চলছিল শতবর্ষ পেরিয়ে আসা রয়্যাল কলেজ ও থমাস কলেজের মধ্যকার তিনদিনের ম্যাচ। যে ম্যাচকে ঘিরেই উত্সবের আমেজ এ অঞ্চলে। রয়্যাল-থম্বিয়ান তথা ব্যাটেল অব ব্লুজ ম্যাচ বলা হয় এটিকে। কারণ, দুই দলের পতাকায় রয়েছে ব্লু।

প্রতি বছরই হয় ম্যাচটি। যার শুরুটা হয়েছিল সেই ১৮৭৯ সালে। কেউ কেউ আবার বিগ ম্যাচও বলে থাকেন। প্রথম ম্যাচে দুই কলেজের শিক্ষক-ছাত্ররা খেলেছিলেন। ১৮৮০ সাল থেকে ছাত্ররা শুধু অংশ নিচ্ছেন এ ম্যাচে। এখন পর্যন্ত এ লড়াইয়ে এগিয়ে রয়্যাল কলেজ। ৩৬ বছর তারা জিতেছে এ মর্যাদার লড়াই। 

সন্ধ্যায় বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা ম্যাচ, কিন্তু দেখে মনে হলো এই ম্যাচকে ঘিরেই বেশি উদ্দীপনা লঙ্কানদের। গ্যালারি হাউসফুল। বাইরে দুই কলেজের জার্সি, ক্যাপ, টি-শার্ট বিক্রি হচ্ছে দেদারছে। বসেছে ভ্রাম্যমাণ দোকান। খাবারও বিকোচ্ছে সমানতালে। গ্যালারিতেও কাবাব, পানীয়’র দোকানে ভিড়।

গতকাল ছিল ১৩৯তম লড়াইয়ের দ্বিতীয় দিন। সিংহলিজ স্পোর্টস ক্লাব মাঠের গ্যালারিতে প্রবেশ করে ম্যাচের আমেজ মিলেছে। দর্শকরা গানের তালে নাচছেন। বিকট শব্দে লম্বা সময় গ্যালারিতে অবস্থান করা দায়। তবে মাঠের ক্রিকেট চলছিল আপন গতিতে।

নো ফেসবুক, নো হোয়াটসঅ্যাপ

ঢাকা থেকেই জেনে গিয়েছিলাম শ্রীলঙ্কায় সামাজিক যোগাযোগের ওয়েবসাইটগুলো সব বন্ধ। দাঙ্গা রুখতে লঙ্কান সরকার আপদকালীন এ ব্যবস্থা নিয়েছে। গত বৃহস্পতিবার বন্দরনায়েক বিমানবন্দরে নামার পর মুঠোফোনের সিম বিক্রির প্রতিষ্ঠানগুলোর কর্মকর্তারা শুরুতেই বলে নিয়েছে, নো ফেসবুক, নো হোয়াটসঅ্যাপ।

নিত্যদিনের সঙ্গী হয়ে পড়া ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপ বন্ধ থাকায় যোগাযোগে বড় ধরনের সমস্যা হচ্ছে স্থানীয়দের মতো আমাদেরও। তবে কলম্বোর নানা পেশার লোকের সঙ্গে কথা বলে মনে হলো, তারা বিষয়টা মেনে নিয়েছে। মুসলিম ও বৌদ্ধদের এ সংঘাত থামাতে সরকারি সিদ্ধান্তের প্রতি শ্রদ্ধা সবার মাঝেই বিরাজমান। তবে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট বোর্ডের মিডিয়া ম্যানেজার জানিয়েছেন, আজ খুলে দেওয়া হতে পারে সব ধরনের সামাজিক যোগাযোগের ওয়েবসাইট।

ম্যাচের দিনে বন্ধ ক্রিকেট একাডেমি

গতকাল সকালে প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে রাজ্যের স্তব্ধতা অনুভব করলাম। ম্যাক্স ক্রিকেট একাডেমি জনমানব শূন্য। পরিচ্ছন্নতা কর্মীরা জানালো, ম্যাচের দিন বলে এখানে সব কার্যক্রম বন্ধ। একাডেমিতে নেই তরুণ ক্রিকেটাররা। তাদের অনুশীলনও নেই। একাডেমিতে থাকা লঙ্কান নারী ক্রিকেটারদেরও দেখা মিলেনি। পরে প্রেমাদাসার অভ্যন্তরে জিমে পাওয়া গেল শ্রীলঙ্কা অনূর্ধ্ব-১৯ দলের ট্রেনার দর্শনকে। তিনি জানালেন, শনিবার আমাদের অনুশীলন থাকে। কিন্তু আজ ম্যাচ বলে সব বন্ধ। যদিও গতকাল বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা ম্যাচটা শুরু হয়েছিল স্থানীয় সময় সন্ধ্যা সাতটায়।

খেলার নগরী

পাশাপাশি দুটি বিল্ডিংয়ে এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিল (এসিসি) ও শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট বোর্ড (এসএলসি) অফিস। গতকাল এসএলসি খোলা পেলেও এসিসির অফিস বন্ধ ছিল। এ দুই অফিস যাওয়ার পথে কলম্বো শহরের আরেকটা রুপও চোখে পড়েছে। এসএলসি, এসিসি অফিসের অঞ্চলে দুই পাশেই অনেকগুলো মাঠ। সেখানে বাস্কেটবল, ব্যাডমিন্টন, ক্রিকেটসহ অনেক খেলার চর্চা করছেন শত শত খেলোয়াড়। সব জায়গায় আছে কম বেশি দর্শক। খেলাধুলার উন্মাদনা, নেশায় বুঁদ নগরবাসী। তবে এটা স্পষ্ট ক্রিকেটই সব উত্তেজনার কেন্দ্র নয় তাদের কাছে।

টানা বিশ্রামে ভারতীয় দল

গত ৮ মার্চ বাংলাদেশের বিপক্ষে ম্যাচের পর থেকেই বিশ্রামে রয়েছে ভারতীয় দল। বাংলাদেশকে ছয় উইকেটে হারানো ভারত টানা দুইদিন অনুশীলন করেনি। হোটেলে জিম, সুইমিং করেই সময় কাটছে ভারতীয় ক্রিকেটারদের। আগামীকাল শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে ফিরতি ম্যাচ খেলবে রোহিত শর্মার দল। জানা গেছে, আজ সকালে প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে ম্যাচ পূর্ব অনুশীলন করবে ভারত।

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
১১ মার্চ, ২০১৯ ইং
ফজর৪:৫৬
যোহর১২:০৯
আসর৪:২৭
মাগরিব৬:০৯
এশা৭:২১
সূর্যোদয় - ৬:১১সূর্যাস্ত - ০৬:০৪
পড়ুন