উইন্ডিজকে পাকিস্তানের হোয়াইট ওয়াশ
‘পাকিস্তানে এখন ক্রিকেট নিরাপদ’
০৫ এপ্রিল, ২০১৮ ইং
‘পাকিস্তানে এখন ক্রিকেট নিরাপদ’
 স্পোর্টস রিপোর্টার

ঘরের মাটিতে আরও একটা সিরিজ সফলভাবে আয়োজন শেষ করলো পাকিস্তান।

করাচিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে শেষ টি-টোয়েন্টিতে ৮ উইকেটে হারানোর ভেতর দিয়ে এই সিরিজ শেষ করলো স্বাগতিকরা। সেই সাথে নিশ্চিত করলো তারা তিন ম্যাচের সিরিজে সফরকারীদের হোয়াইট ওয়াশ করা। তবে মাঠের খেলার চেয়েও গুরুত্বপূর্ণ হলো, এই সিরিজের পর পাকিস্তান ক্রিকেটের জন্য আরও নিরাপদ বলে প্রমাণিত হলো। ম্যাচশেষে তাই পাকিস্তানের অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদ বলেছেন, এখন আর দলগুলোর পাকিস্তানে না আসার কোনো অজুহাত থাকতে পারে না।

সিরিজের প্রথম দুই টি-টোয়েন্টি যথাক্রমে ১৪৩ রান ও ৮২ রানে জিতেছিল পাকিস্তান। শেষ ম্যাচে আগে ব্যাট করা ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৬ উইকেটে তুলেছিল ১৫৩ রান। তাদের ওপেনার আনেবদ্র ফ্লেচার ৪৩ বলে ৫২ রানের ইনিংস খেলে ভিত গড়ে দিয়েছিলেন। তারপরও মিডল অর্ডারের ব্যর্থতায় মুখ থুবড়ে পড়ে ক্যারিবিয় ইনিংস। শেষ পর্যন্ত দিনেশ রামদিনের ১৮ বলে ৪টি চার ও ৩টি ছক্কায় অপরাজিত ৪২ রান একটু পথ দেখায় ওয়েস্ট ইন্ডিজকে।

জবাবে ৫.২ ওভারে বিনা উইকেটে ৬১ রান তুলে জয়টা কাছে নিয়ে আসে পাকিস্তান। ফকর জামান ১৭ বলে ৪০ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলে ফেরেন। এরপর বাবর আজম ৪০ বলে করেন ৫১ রান। আর তালাত ৩১ ও আসিফ আলী ২৫ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলে জয় নিশ্চিত করেন।

যদিও বলা হচ্ছে, পাকিস্তানের এই জয়গুলো এসেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজের একটা দ্বিতীয় সারির দলের বিপক্ষে। নিরাপত্তা শঙ্কায় শীর্ষ খেলোয়াড়দের অনেককে করাচিতে পাঠাতে পারেনি ক্যারিবিয় বোর্ড। তবে দ্বিতীয় সারির এই দলের প্রসঙ্গ শুনে চটে উঠলেন পাকিস্তানি অধিনায়ক সরফরাজ। তিনি বলছেন, তারা ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষেই খেলতে চেয়েছেন, কোনো দ্বিতীয় সারির দলের বিপক্ষে নয়, ‘আমি শুনছি যে, লোকে বলছে, এই সিরিজ খেলতে একটা দুর্বল দল এসেছে। পিসিবি কোনো দুর্বল দলকে আসতে বলেনি। আমরা ওয়েস্ট ইন্ডিজের সফর চেয়েছিলাম পাকিস্তানে। তাই হয়েছে। আমরা শ্রেয়তর ক্রিকেট খেলেছি। অবশ্যই আমাদের কৃতিত্ব দিতে হবে। আমাদের খেলোয়াড়দের অবশ্যই কৃতিত্ব পাওনা। কারণ, তারা অস্বাভাবিক ভালো ক্রিকেট খেলেছে। একটা বি-দল এসেছিল, এটা বলাটাই ভুল কথা। এই দলের আট জন খেলোয়াড় সর্বশেষ ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরের দলেও ছিল। এই দলের চার জন খেলোয়াড় পিএসএল খেলেছে। আমার মনে হয় না, এটা দুর্বল দল। আমরা স্রেফ ভালো ক্রিকেট খেলেছি।’

এই সিরিজের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট আরও একটু প্রসারিত হলো পাকিস্তানে। পিএসএলের পরপর দুই মৌসুমে বেশ কিছু ম্যাচ আয়োজনের পাশাপাশি পাকিস্তানে শ্রীলঙ্কা ও বিশ্ব একাদশের বিপক্ষে দুটি সিরিজ অনুষ্ঠিত হয়েছে সম্প্রতি। এরপর হলো এই সিরিজটা। সবগুলো খেলা নিরাপদে হওয়ার পর সরফরাজ বলছেন, এখন আর দলগুলোর পক্ষে কোনো অজুহাত দেওয়া সম্ভব না, ‘আমার মনে হয় না যে, দলগুলোর হাতে পাকিস্তান না আসার জন্য আর কোনো অজুহাত অবশিষ্ট আছে। এই সিরিজের তৃতীয় ম্যাচ হওয়া সত্ত্বেও আজকেও অনেক মানুষ এসেছিলেন খেলা দেখতে। করাচির মানুষ প্রমাণ করেছেন, পাকিস্তানে নিরাপদে ক্রিকেট খেলা সম্ভব। ফলে দলগুলোর উচিত হবে না, আর কোনো অজুহাত খোঁজা। আইসিসির একটা বিশ্ব একাদশ খেলেছে এখানে, এখানে পিএসএল ফাইনাল হয়েছে এবং তার আগে শ্রীলঙ্কা সিরিজ খেলে গেছে। ফলে আমি আশা করি, ভবিষ্যতে আর কোনো দল এখানে আসার ক্ষেত্রে নিরাপত্তার শঙ্কায় ভুগবে না। এ বছর বা আগামী বছর, ক্রিকেট পাকিস্তানে ফিরবেই।’

 

 

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
৫ এপ্রিল, ২০২১ ইং
ফজর৪:৩০
যোহর১২:০২
আসর৪:৩০
মাগরিব৬:১৯
এশা৭:৩২
সূর্যোদয় - ৫:৪৭সূর্যাস্ত - ০৬:১৪
পড়ুন