অবনমিত হলো অগ্রণী ব্যাংক ব্রাদার্সের রুদ্ধশ্বাস জয়ে ম্লান সৌম্যর ঝড়
০৫ এপ্রিল, ২০১৮ ইং
অবনমিত হলো অগ্রণী ব্যাংক ব্রাদার্সের রুদ্ধশ্বাস জয়ে ম্লান সৌম্যর ঝড়
 স্পোর্টস রিপোর্টার

বল ১২৭ রান ১৫৪ চার ৯ ছয় ১১

জিতলে টিকে থাকা, হারলেই প্রথম বিভাগে অবনমন। রেলিগেশন লিগের শেষ ম্যাচে এমন বাঁচা-মরার সমীকরণ মাথায় করেই গতকাল খেলতে নেমেছিল ব্রাদার্স ইউনিয়ন-অগ্রণী ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাব। দিনভর বিকেএসপিতে ব্যাটে-বলে দুর্দান্ত লড়াইয়ে ক্ল্যাসিক এক ওয়ানডে ম্যাচ উপহার দিয়েছে দুদল। সৌম্য সরকারের বিধ্বংসী ব্যাটিংয়ে রানের পাহাড় গড়েছিল অগ্রণী ব্যাংক।

বিকেএসপির রানস্বর্গ উইকেটে ব্যাটসম্যানদের সম্মিলিত প্রয়াসে সেই পাহাড় টপকে গেছে ব্রাদার্স। ম্যাচের শেষ বলে চার রান দরকার ছিল তাদের। রিশি ধাওয়ানের করা বলে চার মেরে ব্রাদার্সকে রুদ্ধশ্বাস এক জয় এনে দেন নাজমুস সাদাত। গতকাল চার উইকেটের অনন্য জয়ে ঢাকা প্রিমিয়ার ক্রিকেট লিগে টিকে থাকল ব্রাদার্স। ১২ পয়েন্ট নিয়ে রেলিগেশনের শীর্ষে ক্লাবটি। ১০ পয়েন্টধারী অগ্রণী ব্যাংক প্রথম বিভাগে নেমে গেল কলাবাগান ক্রীড়া চক্রের সঙ্গী হয়ে।

প্রথমে ব্যাট করে সৌম্যর ঝড়ো সেঞ্চুরিতে ৪৯.১ ওভারে ৩৩৪ রানের বিশাল স্কোর গড়ে অগ্রণী ব্যাংক। পরে চার ব্যাটসম্যানের হাফ সেঞ্চুরিতে ৫০ ওভারে ছয় উইকেটে ৩৩৫ রান তুলে ম্যাচ জিতে নেয় ব্রাদার্স। দল হারলেও অগ্রণী ব্যাংকের সেঞ্চুরিয়ান সৌম্য ম্যাচ সেরা হন।

রান তাড়া করতে নেমে ব্রাদার্স দুর্দান্ত শুরু এনে দেন ওপেনার মিজানুর ও জুনায়েদ। তারা ১২১ রানের জুটি গড়েন। ইনফর্ম মিজানুর ৪৫ বলে ৬২ রান করেন। জুনায়েদ ফিরেন ৮৩ রান করে। তৃতীয় উইকেটে মাইশুকুর-দেবব্রত দাস ৮৮ রানের জুটি গড়েন। তাদের ব্যাটে জয়ের পথে এগিয়ে যায় ব্রাদার্স। মাইশুকুর থামেন ৮২ রান করে। পরে অলক কাপালি, ইয়াসির আলী দ্রুত আউট হলেও দেবব্রত দাস টিকিয়ে রেখেছিলেন দলকে। জয় থেকে আট রান দূরে থাকতে তিনি আউট হন। শেষ ওভারে ৯ রানের সমীকরণ পাড়ি দিয়েছে ব্রাদার্স নাজমুস সাদাতের ব্যাটে। ১০ রানে অপরাজিত ছিলেন তিনি। দেবব্রত দাস ৭৩ রান করেন। অগ্রণী ব্যাংকের পক্ষে রিশি ধাওয়ান তিনটি উইকেট পান।

এর আগে টসে হেরে ব্যাট করা অগ্রণী ব্যাংক ১৩৬ রানে চার উইকেট হারিয়েছিল। পঞ্চম উইকেটে ভারতীয় অলরাউন্ডার রিশি ধাওয়ানের সঙ্গে জুটি গড়েন একপ্রান্ত আগলে থাকা ওপেনার সৌম্য। তারা ১৭১ রানের জুটি গড়েন। ১০৭ বলে লিস্ট-এ ক্যারিয়ারের তৃতীয় সেঞ্চুরি তুলে নেন সৌম্য। প্রায় তিন বছর সেঞ্চুরি গড়ার দিনে খেলেছেন ক্যারিয়ার সেরা ইনিংস। ৪৬তম ওভারে আউট হওয়ার আগে ১২৭ বলে ১৫৪ রানের অসামান্য ইনিংস খেলেন এ বাঁহাতি। যা এবার লিগেরও ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ ইনিংস।

সৌম্য ৯টি চারের পাশাপাশি ১১টি ছক্কা হাঁকিয়েছেন। লিস্ট-এ ক্রিকেটে বাংলাদেশিদের মধ্যে এক ইনিংসে সর্বোচ্চ ১১ ছক্কা ছিল মাশরাফির। গতকাল মাশরাফির রেকর্ডে ভাগ বসালেন সৌম্য। ২০১৬ সালে ফতুল্লায় কলাবাগানের হয়ে শেখ জামালের বিপক্ষে ৫১ বলে ১০৪ রানের ইনিংসে ১১টি ছক্কা মেরেছিলেন মাশরাফি।

শেষদিকে ৮ রানে পাঁচ উইকেট হারানোর ফলে অগ্রণী ব্যাংকের রানটা সাড়ে তিনশো ছাড়ায়নি। ব্রাদার্সের সাখাওয়াত ও সোহরাওয়ার্দী শুভ তিনটি করে উইকেট নেন।   

   সংক্ষিপ্ত স্কোর

অগ্রণী ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাব: ৪৯.১ ওভারে ৩৩৪ (সৌম্য সরকার ১৫৪, রিশি ধাওয়ান ৮০, ধীমান ঘোষ ২৫, শাহরিয়ার নাফীস ২৪, সালমান হোসেন ২৩; সাখাওয়াত হোসেন ৩/৪৩, সোহরাওয়ার্দী শুভ ৩/৪৮, মাইশুকুর ১/৪৭, ইফতেখার সাজ্জাদ ১/৫৫)।

ব্রাদার্স ইউনিয়ন: ৫০ ওভারে ৩৩৫/৬ (জুনায়েদ ৮৩, মাইশুকুর ৮২, দেবব্রত দাস ৭৩, মিজানুর ৬২, নাজমুস সাদাত ১০*, অলক কাপালি ৯; রিশি ধাওয়ান ৩/৭১, ইসলামুল আহসান ১/৩৫, রাজ্জাক ১/৫০, শফিউল ১/৭১)।

ফল: ব্রাদার্স ইউনিয়ন চার উইকেটে জয়ী।

ম্যাচ সেরা: সৌম্য সরকার (অগ্রণী ব্যাংক)।

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
৫ এপ্রিল, ২০২১ ইং
ফজর৪:৩০
যোহর১২:০২
আসর৪:৩০
মাগরিব৬:১৯
এশা৭:৩২
সূর্যোদয় - ৫:৪৭সূর্যাস্ত - ০৬:১৪
পড়ুন