‘স্মিথ-ওয়ার্নারের বেশি সাজা হয়েছে’
স্পোর্টস রিপোর্টার৩০ এপ্রিল, ২০১৮ ইং
‘স্মিথ-ওয়ার্নারের বেশি সাজা হয়েছে’
বল টেম্পারিং ইস্যুতে অস্ট্রেলিয়ার নাম আসার পর বেশ অনেকটা সময় কেটে গেছে। ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার (সিএ) নিষেধাজ্ঞা পেয়ে এখন নির্বাসনে আছেন তিন ক্রিকেটার - স্টিভেন স্মিথ, ডেভিড ওয়ার্নার ও ক্যামেরন ব্যানক্রফট। যে দলের বিপক্ষে তারা বল টেম্পারিং করেছেন, সেই দলের সাবেক অধিনায়ক এবি ডি ভিলিয়ার্স মানছেন সাজাটা একটু বেশিই কঠোর হয়ে গেছে তাদের জন্য।

ভিলিয়ার্স মানছেন, যেটা হয়েছেন সেটা অকল্পনীয়। তবুও শাস্তিটা আরো কম রাখা যেত বলেই মত দিলেন তিনি, ‘ ‘কেপটাউন টেস্টে যা ঘটেছে, তা সত্যি অকল্পপনীয় ও অগ্রহণযোগ্য। তবে স্মিথরা যেই শাস্তি পেয়েছে সেটি অনেক বেশি হয়ে গেছে। তারা ভুল করেছে, এজন্য এমন শাস্তি দেয়া ঠিক হয়নি। যা ঘটেছে তাতে ঘটনাটা খুব বড় হয়ে গেছে। অবশ্যই, এটি খুবই গুরুতর একটি ব্যাপার। তবে এটাকে এমন একটি জায়গায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে, এতে তারা অনেক বেশি চাপ অনুভব করেছে। তাদেরকে যে শাস্তি দেয়া হয়েছে, আমার মনে হয় তা বেশি হয়ে গেছে।’

দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে তৃতীয় টেস্ট বল টেম্পারিং কেলেঙ্কারিতে জড়িত থাকায় ঘরোয়া ও আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে নিষিদ্ধ হয়েছেন তিন অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটার। এক বছরের জন্য নিষিদ্ধ হয়েছেন অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথ ও সহ-অধিনায়ক ডেভিড ওয়ার্নার। আর নয় মাসের জন্য নিষিদ্ধ হয়েছেন ক্যামেরন ব্যানক্রফট। এ ঘটনায় পরবর্তীতে পদত্যাগ করেন অস্ট্রেলিয়ার কোচ ড্যারেন লেম্যান।

বিশেষ করে স্মিথ ও ওয়ার্নার যে মানের ক্রিকেটার তাতে, তাদের প্রতি সিএ’র আরেকটু সদয় হওয়া উচিত ছিল বলে মানছেন ভিলিয়ার্স, ‘বল টেম্পারিংয়ের ঘটনায় ব্যক্তিগতভাবে তারা খুব কষ্ট পেয়েছে। তাদের জন্য আমার খারাপ লাগছে। বিশেষ করে ওয়ার্নার ও স্মিথের জন্য। ওদের দেখে মনে হয়েছে, সে খুবই কষ্ট পেয়েছে। সিএ চাইলে শাস্তিটা আরো কমও দিতে পারতো।’

বল টেম্পারিং ইস্যুর কারণে সেই সিরিজে দক্ষিণ আফ্রিকা যে বেশ ভালো পারফর্ম করেছে, সেই ব্যাপারটা আড়ালে চলে গেছে। ভিলিয়ার্স বলেন, ‘সত্যিই সিরিজের উপর কালো থাবা পড়েছে। এতে কোনা সন্দেহ নেই। এমনটি হওয়া উচিত হয়নি। তবে আমরা যেভাবে খেলেছি, এটি ছিলো প্রশংসনীয়। ক্রিকেটের দিক দিয়ে দেখলে, আমাদের পারফরম্যান্স ছিল অসাধারণ। পিছিয়ে পড়েও আমরাই ৩-১ ব্যবধানে সিরিজ জিতেছি। বিষয়টা সত্যিই দারুণ ছিল।’

২০১৫ সালের জানুয়ারিতে কেপটাউনে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে বড় ফরম্যাটে সেঞ্চুরি পর অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সিরিজে সেঞ্চুরির দেখা পান ডি ভিলিয়ার্স। তাই ঐ সেঞ্চুরিটি তার মনে দাগ কেটেছে, ‘দীর্ঘদিন পর কিছু অর্জন করা গেলে সেটির অনুভূতি প্রকাশ করার মতো নয়। ডারবানে অস্ট্রেলিয়ার কাছে হারের পর আমার সেঞ্চুরিতেই ম্যাচ জয়ের পথ পায় দল। শেষ পর্যন্ত জিততেও পারি, তাই এই সেঞ্চুরিটি আমরা সবসময় মনে থাকবে। সেঞ্চুরিটি ছিল অবিশ্বাস্য।’

ভিলিয়ার্স এখন সমানতালে মনোযোগ দিচ্ছেন তিন ফরম্যাটে। তিনি বলেন, ‘আমার মনোযোগ এখন তিন ফরম্যাটেই। তিনটাই এখন সমানভাবে উপভোগ করছি। প্রতিটা ম্যাচ সামনে রেখে এখন পরিকল্পনা করি। এর চেয়ে বেশি কিছু মাথায় থাকে না।’

বড় ক্রিকেটার হতে হলে বিশ্বকাপ জিততেই হবে, এমন ধারণা থেকেও সরে এসেছেন ভিলিয়ার্স। জিতলে সেটাকে বোনাস হিসেবে দেখবেন তিনি। বললেন, ‘বিশ্বকাপ জয় আমার চূড়ান্ত লক্ষ্য নয়। এই ভাবনাটা এখন পাল্টে ফেলেছি। হ্যাঁ, জিতলে অবশ্য ভালো লাগবে। সেটা হবে বোনাস। কিন্তু জিততে না পারলে সেটা আমার ক্যারিয়ারকে কোনো ভাবেই প্রভাবিত করতে পারবে না।’

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
৩০ এপ্রিল, ২০২১ ইং
ফজর৪:০৪
যোহর১১:৫৬
আসর৪:৩২
মাগরিব৬:২৯
এশা৭:৪৭
সূর্যোদয় - ৫:২৫সূর্যাস্ত - ০৬:২৪
পড়ুন