শিশুরাই জাতির ভবিষ্যত্ কর্ণধার
কাউসার আহমেদ তুষার০৩ মার্চ, ২০১৬ ইং
এসেছে নতুন শিশু; তাকে ছেড়ে দিতে হবে স্থান। আজকের শিশু আগামী দিনের দেশ ও জাতির ভবিষ্যত্ কর্ণধার ও রাষ্ট্রনায়ক। তারাই একদিন সুনাগরিক হয়ে দেশের নেতৃত্ব দেবে। একটি নবজাতক শিশুর মাঝে আজ যে প্রাণের সঞ্চার হলো তা একদিন ফুলে ফুলে প্রস্ফুটিত হবে। পৃথিবীকে নতুন করে গড়ে তুলবে তারাই। বিশ্বায়ন ও উন্নত প্রযুক্তির প্রভাবে পৃথিবীকে হাতের মুঠোয় রেখে নিয়ন্ত্রণ করার সক্ষমতা ও সুপ্ত প্রতিভা লুকিয়ে রয়েছে আজকের শিশুর দুই চোখে।

এতোকিছু সত্ত্বেও আজ আমাদের শিশুরা চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে। দেশের শিশুদের উপর যে পাষণ্ড নির্যাতন, বর্বরতা, হত্যাযজ্ঞ চলছে তা যেন মধ্যযুগীয় বর্বরতাকে হার মানায়।

ইদানীং শিশু হত্যা, নির্যাতন, অপহরণ এতো পরিমাণে বেড়েছে পত্র-পত্রিকা আর বিভিন্ন মিডিয়ায় চোখ রাখলেই দেখা যায় কতো মমতাময়ী মা, বাঁধন হারা পিতার বুক ফাটা আর্তনাদ। জাতীয় প্রেসক্লাবসহ দেশের গুরুত্বপূর্ণ জায়গায় প্লাকার্ড আর ব্যানার হাতে নিয়ে অভিভাবকরা মানববন্ধন করে তীর্থের কাকের মত প্রতীক্ষা করছে তাদের হারিয়ে যাওয়া হূদয়ের অংশ কলিজার টুকরা সন্তানদের ফিরে পেতে। কিন্তু কে শুনে কার কথা? সবই জেনো অরণ্য রোদন। আমাদের সমাজ আজ অন্যায় অত্যাচার ব্যভিচারের বেড়াজ্বালে আচ্ছাদিত। এখানে ন্যায়ের চেয়ে অন্যায় বেশি, নিয়মের চেয়ে অনিয়ম বেশি, নীতির চেয়ে দুর্নীতি বেশি, নীতিভ্রষ্ট ও পথভ্রষ্ট মানুষের সংখ্যা এখানে বেড়েই চলছে। আমরা আমাদের শিশুদের উপর যে বর্বর বোধশক্তিহীন হিংস্রতা ও পৈশাচিক নির্যাতন করে আসছি তা সত্যিই নিষ্ঠুরতম বর্বর পরিকল্পনা ও নির্ভীকার হত্যাকাণ্ডের সামিল। বিশ্ববাসী আজ আমাদের এই বিবেকহীন সভ্যতা বিধ্বংসী কর্মকাণ্ডের বীভত্স ঘৃণ্য দৃশ্য অবাক দৃষ্টিতে দেখছে আর উদ্বেগ প্রকাশ করছে। যদি এভাবে শিশু নির্যাতন, অপহরণ, হত্যাকাণ্ড চলতেই থাকে তাহলে জাতি হারাতে পারে আগামী দিনের সুচিন্তা সম্পন্ন দক্ষ, আদর্শ ও বিপুল সম্ভাবনাময় ভবিষ্যত্ বাংলাদেশ গড়ার নাগরিকদের।

n লেখক :ব্যবস্থাপনা বিভাগ, ঢাকা কলেজ, ঢাকা


এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
৩ মার্চ, ২০২১ ইং
ফজর৫:০৪
যোহর১২:১১
আসর৪:২৪
মাগরিব৬:০৫
এশা৭:১৮
সূর্যোদয় - ৬:১৯সূর্যাস্ত - ০৬:০০
পড়ুন