ধূমপানবিরোধী দিন!
৩১ মে, ২০১৫ ইং
 

আজকের দিনটাকে একটা আজিব দিন হিসেবে গণ্য করা যেতে পারে। তাও যেন তেন ‘আজিব’ নয়। একেবারে স্পেশাল টাইপের। আর সবারই তো জানার কথা—দুনিয়ার যা কিছু আজিব, তা-ই ঠাট্টার অন্তর্ভুক্ত! তাহলে আর না পেঁচিয়ে বিষয়টা বরং খোলাসাই করা যাক, কী বলেন? এককথায় বললে বলা যায়, আজ বিশ্ব তামাকবিরোধী দিবস। দিবস-টিবস যারা নির্ধারণ করেছেন, তারা বোধহয় এখনো একটু সেকেলেই রয়ে গেছেন। তা না হলে, তামাক যে এখন সিগারেটকে পাশ কাটিয়ে ইয়াবা-হিরোইনে ডিজিটালাইজড হয়ে গেছে, সেটা কে না জানে। অথচ, কী আশ্চর্য আজকের দিনটাকে এখনো তামাকমুক্ত দিবস হিসেবেই পালন করা হয়ে থাকে। আজ বিশ্ব তামাকমুক্ত দিবস—এর মানে কি এই যে আজকের দিনটা বাদে বছরের বাকি দিনগুলো বিশ্ব তামাক‘যুক্ত’ দিবস? উত্তরটা অবশ্য আমার জানা নেই। ফি বছর তামাকজাত দ্রব্যের বিষক্রিয়ায় হাজারো মানুষ মারা যাচ্ছেন। তামাকখোরদের ফুসফুস ধীরে ধীরে ছিদ্র হতে হতে চালুনি বা মাছ ধরার জালের মতো অসংখ্য ছিদ্রযুক্ত বস্তুতে পরিণত হতে চলেছে। তবুও কারো কোনো ভ্রূক্ষেপই নেই। বছরের অন্যান্য দিন তো আছেই, এমনকি আজকের দিনটিতেও তাদের ধূমপান থেমে নেই। প্রতিদিন ধূপমান করে তারা কত কত টাকা গচ্চা দিচ্ছেন। নিজেদের স্বাস্থ্যের ক্ষতি তো করছেনই, সেই সাথে আশপাশের অধূমপায়ীরাও বিপদের দিকে এগোচ্ছেন শুধু তাদের নিসৃত ধোঁয়ার কারণে...

ইদানীং ধূমপানবিরোধী সচেতনতা বাড়ছে। বিভিন্ন বিড়ি-সিগারেটের দোকানে লেখা তাকে—আঠারো বছরের নিচে কারো কাছে সিগারেট বিক্রি করা নিষিদ্ধ। অথচ, সিগারেট বিক্রিই করছে খোদ আঠারো বছরের নিচের কেউ। শুধু আজকের দিনটাই নয়, আমরা চাই সারা বছরই হোক তামাকবিরোধী, তামাক ও তামাকজাতীয় পণ্য মানুষ ব্যবহার না করুক।

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
৩১ মে, ২০২১ ইং
ফজর৩:৪৪
যোহর১১:৫৬
আসর৪:৩৬
মাগরিব৬:৪৪
এশা৮:০৭
সূর্যোদয় - ৫:১১সূর্যাস্ত - ০৬:৩৯
পড়ুন