যাহা চাই তাহা পাই না, যাহা পাই তাহা চাই না...
১১ মার্চ, ২০১৮ ইং
রুবেল কান্তি নাথ

 

জরুরি প্রয়োজনের তাগিদে দু’দিন আগে গন্তব্যে যাওয়ার জন্য অগ্রীম ট্রেনের টিকেট কেটে রেখেছিলেন। নির্দিষ্ট দিনে-নির্দিষ্ট সময়ে রেলস্টেশনে গিয়ে জানতে পারলেন, অনির্দিষ্ট কারণে ট্রেন আজ বারো ঘণ্টা লেট!

আকাশে ফকফকা রোদ দেখে ছাতা না নিয়েই স্যুট-টাই পরে অফিসে বা কর্মস্থলে রওনা দিয়েছেন। মাঝপথে গিয়ে দেখলেন, মুষলধারে বৃষ্টি নেমেছে। যে বৃষ্টি কোনো কৈফিয়ত ছাড়াই আপনাকে গোসল করিয়ে দিয়ে চড়ুই পাখির মতো ফুড়ুত করে উড়াল দিয়েছে!

আপনি দুপুরে খেতে তেমন একটা বাসায় যান না। কিন্তু সেদিন স্ত্রীকে ফোনে জানিয়েছিলেন যে, খেতে বাসায় আসছেন। পেটে প্রচণ্ড ক্ষুধা নিয়ে বাসায় গমন করার পর স্ত্রীর মুখে সুমধুর বাণী শুনতে পেলেন, ‘রান্না শেষ হতে আরও ঘণ্টা খানেক লাগবে!’

 

প্রেমিক সাহেবের সঙ্গে কুতকুত খেলার জন্য মানে দেখা করার জন্য তার পছন্দমতো সবুজ সালোয়ার-কামিজ রেডি করছিলেন। তখনই দেখতে পেলেন, ‘ইন্দুর’ মহাশয় আপনার কাঙ্ক্ষিত সবুজ ওড়নাটার বারোটার পাশাপাশি তেরোটা বাজিয়ে দিয়েছে!

 

প্রাণপ্রিয় প্রেমিকা বাইলা খাতুনের সঙ্গে ডেটিং করবার জন্য নায়ক ‘শাকিব খান’ সেজে রমনা পার্কের উদ্দেশে বের হয়েছেন। পথিমধ্যে ‘কাউয়া’ সাহেব অতি যত্নের সহিত আপনার মাথায় ও শরীরে প্রাকৃতিক কর্ম সম্পাদন করে ভেগে গেছে!

 

 অফিস থেকে স্বামীপ্রবর হঠাত্ ফোন করে জানালেন, তিনি দুপুরে বাসায় খেতে আসছেন। তড়িঘড়ি করে চুলায় রান্না করতে গিয়ে টের পেলেন, গ্যাস বাবাজি বউ-ছেলে-মেয়ে সমেত শ্বশুরবাড়ি দাওয়াত খেতে গেছেন!

 

অতি আগ্রহ সহকারে টেলিভিশন ‘জেড’ চ্যানেলের একটি জনপ্রিয় অনুষ্ঠান দেখতে বসেছেন। নির্ধারিত সময়ে উপস্থাপিকা খিকখিক করে দাঁত কেলিয়ে হেসে জানাল, ‘অনির্ধারিত কারণবশত, আজ অমুকের তিন নম্বর স্ত্রীর ভেগে যাওয়া দিবস উপলক্ষে-নির্ধারিত অনুষ্ঠানটি প্রচার করা সম্ভব হচ্ছে না।’

বাসায় শাশুড়ি আম্মা বেড়াতে আসাতে, তার প্রিয় মাছ ইলিশ কিনতে বাজারে গেছেন। কিন্তু পুরো বাজার ঘুরেও ইলিশের টিকিটির দেখাও পেলেন না। দুনিয়ার সব মাছ বাজারে আছে, শুধু ইলিশ সাহেব গায়েব হয়ে গেছেন!

আপনি একজন ব্যবসায়ী। মার্কেটে নির্দিষ্ট একটা পণ্যের বাজার কাটতি দেখে, সেই পণ্য বেশি পরিমাণে গুদামে মজুদ করলেন। দু’দিন পর দেখা গেল, সেই পণ্য অতি সস্তা দামেও ক্রেতারা ছুঁয়ে দেখছেন না। যে পণ্যটি সস্তা দামে সুযোগ পেয়েও মজুদ করেননি, সেই পণ্যের বাজার রমরমা!

 

জরুরি কাজে বাসা থেকে বের হয়েছেন। কিছুক্ষণের মধ্যেই গন্তব্যে না পৌঁছালেই নয়। রাস্তায় তীর্থের কাকের মতো দাঁড়িয়ে থাকলেন একখানা বাহনের আশায়। নাই-নাই-নাই ওরে, নাই। কোথাও একটা রিকশা বা অটোরিকশার দেখাও নেই। অন্য সময় শত-শত রিকশা, অটোরিকশা আপনাকে মুখ ভেংচে এদিক-ওদিক ছোটাছুটি করে!

 

অনেক বেলা করে ঘুম থেকে ওঠার খায়েশ হয়েছিল আপনার। আজ আপনার ছুটির দিন। অফিসে বা কর্মস্থলে যাওয়ার তাড়া নেই। আরাম করে নাকে এক নম্বর খাঁটি সরিষার তেল দিয়ে ঘুমাচ্ছিলেন। কিন্তু সকাল হতে না হতেই আপনার স্ত্রী চেঁচিয়ে উঠলেন, ‘এই মিনসে, ঘুম থেকে উঠে আমার কাজে সাহায্য করো। সপ্তাহের ছয় দিনই তো অফিসের দোহাই দিয়ে সংসারের কাজে ফাঁকি দাও!’

 

 বিরোধীদল একটানা পাঁচ-সাতদিন হরতাল আহ্বান করেছে। যে কারণে পরীক্ষার রুটিন বদলানো হয়েছে। পরীক্ষাগুলো সাতদিন পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে। মনের সুখে পড়াশোনা ফেলে আনন্দে বগল বাজাচ্ছিলেন। দু’দিন পর বিনা নোটিসে জানতে পারলেন, আগামী হরতালগুলো প্রত্যাহার করা হয়েছে। পরীক্ষা নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ বলছেন, হরতাল উইথড্র করার ফলে আগের নির্ধারিত সময়েই পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। তখন আপনার তো মাথায় হাত তোলার বদলে ঠ্যাঙ তোলার মতো অবস্থা!

প্রতি মাসের ৫-৬ তারিখে আপনি বেতন পান। সেভাবেই সবকিছু গোছানো থাকে। সংসার খরচ থেকে মুদি দোকানের বাকি পর্যন্ত। সেদিন নির্দিষ্ট তারিখে কর্মস্থলে গিয়ে জানতে পারলেন, ‘আরো এক সপ্তাহ পর বেতন দেওয়া হবে!’

অফিসে বিদেশি বায়ারের সঙ্গে আপনাকে একটা জরুরি মিটিংয়ে যোগদান করতে হবে। যে স্যুটটি পরে তার সঙ্গে সাক্ষাত করার কথা ভাবছিলেন, নির্দিষ্ট সময়ে দেখতে পেলেন সেই পুরোনো স্যুটটা বর্তমানে আপনার গায়ে আগের মতো আর ফিটিং হচ্ছে না। অন্য কোনো স্যুটও সেই মুহূর্তে প্রস্তুত করা ছিল না। অগত্যা সাধারণ শার্ট-প্যান্ট পরেই অদৃষ্টকে অশ্রাব্য গালি দিতে দিতে অফিস অভিমুখে রওনা।

গাড়ির ড্রাইভিং লাইসেন্স সবসময় যত্ন করে সঙ্গে রাখেন। গাড়ি চালানোর সময় যাতে পুলিশি ঝামেলায় পড়তে না হয়। সেদিন তাড়াহুড়ো করে ড্রাইভিং লাইসেন্স না নিয়েই পথে বেরিয়ে ট্রাফিক সার্জেন্টের হাতে ‘কট’। ফলে পকেট থেকে একহাজার টাকার একটা নোট মাইনাস করেই তার হাত থেকে নিস্তার পাওয়া!

কোনো একটি মেয়েকে আপনি একদমই পাত্তা দিতেন না। সেই মেয়েটি আপনাকে খুব ভালবাসত। মেয়েটি আপনার কাছ থেকে প্রত্যাখ্যাত হয়ে অন্যকে বিয়ে করল। আপনিও নিজের পছন্দ মাফিক মেয়েকে বিয়ে করলেন। ক’বছর পর বুঝতে পারলেন, আগের মেয়েটিই ঠিক ছিল। যে আপনাকে মন-প্রাণ দিয়ে ভালোবাসত। বর্তমান স্ত্রী আপনাকে ভালোবাসে না। ভালোবাসে আপনার টাকা-বাড়ি-গাড়ি আর সম্পত্তিকে!

 

 

 

 

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
১১ মার্চ, ২০১৯ ইং
ফজর৪:৫৬
যোহর১২:০৯
আসর৪:২৭
মাগরিব৬:০৯
এশা৭:২১
সূর্যোদয় - ৬:১১সূর্যাস্ত - ০৬:০৪
পড়ুন