ও য়া ই এ স আ ই বা ং লা দে শ
তরুণ উদ্যোক্তাদের পথের দিশা
২৮ ফেব্রুয়ারী, ২০১৮ ইং
তরুণ উদ্যোক্তাদের পথের দিশা

তাওসিফ মোনাওয়ার

বর্তমানে উদ্যোক্তা হওয়ার পথটি বেশ কণ্টকাকীর্ণ। এ পথে পদে পদে রয়েছে বাধা। তাহলে কি এই তরুণ উদ্যোক্তাদের সঠিক পথের দিশা দেওয়ার কেউ নেই? না, আছে অবশ্যই। বিভিন্ন সংগঠনই বিশ্বব্যাপী কাজ করে যাচ্ছে তরুণ উদ্যোক্তাদের নিয়ে, তাদের উদ্যোগগুলো সফল করে তোলার লক্ষ্য অর্জনে। তেমনই একটি আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান হলো ওয়াইএসআই, যার পুরো নাম ইয়াং সাস্টেইনেবল ইমপ্যাক্ট। প্রকৃতপক্ষে ওয়াইএসআই কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের মেধাবী তরুণ উদ্যোক্তাদের নিয়ে। প্রতিবছর সারা বিশ্ব থেকে বিভিন্ন প্রক্রিয়ার মাধ্যমে বেছে বেছে সেরা ২৫ জন উদ্যোক্তাকে তুলে আনে প্রতিষ্ঠানটি। নিজেদের কাজের পরিধিকে বিশ্বের প্রতিটি প্রান্তে ছড়িয়ে দিতে ২০১৭ সালে যাত্রা শুরু করে ওয়াইএসআইয়ের বাংলাদেশ, চীন, দক্ষিণ কোরিয়া, সিঙ্গাপুর ও কানাডা অঞ্চলের অপারেশন। বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় উন্নত ৪টি দেশের পাশে একমাত্র উন্নয়নশীল রাষ্ট্র হিসেবে ওয়াইএসআই বাংলাদেশ তার যাত্রা শুরু করে। আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানটির বাংলাদেশে যাত্রা শুরুর মূল উদ্দেশ্য ছিল আগের মতোই জাতিসংঘের টেকসই উন্নয়নের ১৭টি লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে সহায়তা করা।

ওয়াইএসআই বাংলাদেশের মূল লক্ষ্য এ দেশের ২৫ বছরের কম বয়সী তরুণ উদ্যমী ও সৃজনশীল জনগোষ্ঠীকে সফল উদ্যোক্তা হিসেবে গড়ে তোলা। প্রতি বছর দেশব্যাপী আয়োজন করা হবে প্রতিযোগিতার, যেখান থেকে নির্বাচন করা হবে ২৫ জন সম্ভাবনাময় তরুণ উদ্যোক্তাকে। এ বছর ওয়াইএসআই বাংলাদেশ সারা দেশের তরুণদের নিয়ে আয়োজন করতে যাচ্ছে ‘মেগাপ্রেনার্স ২০১৮’ ইভেন্ট। এর লক্ষ্য ঢাকা শহরকেন্দ্রিক নানা সমস্যার হাত থেকে মুক্তির পথ বের করে আনা, একদল তরুণের হাত ধরে নতুন ঢাকার সূচনা করা। এ লক্ষ্যে সারা দেশ থেকে সূক্ষ্ম যাচাই-বাছাইয়ের পর নির্বাচন করা হবে ২৫ জন সম্ভাবনাময় তরুণ উদ্যোক্তাকে, যাদের বয়স হতে হবে ২৫ বছরের কম। টানা ৩ মাস যথোপযুক্ত প্রশিক্ষণ প্রদানের মাধ্যমে তাদেরকে টেকসই ব্যবসা দাঁড় করানোর জন্য যোগ্য করে গড়ে তোলা হবে। প্রশিক্ষণ দেবেন দেশ-বিদেশের বিভিন্ন বড় বড় কোম্পানির প্রধানরা, যাদের সংস্পর্শে এসে সমৃদ্ধ হবে তরুণ উদ্যোক্তাদের অভিজ্ঞতার ঝুলি। এখান থেকে দাঁড় করানো হবে ৫টি টেকসই ব্যবসা। সেই সঙ্গে তারা যুক্ত হতে পারবে অন্যান্য দেশের নেটওয়ার্কের সঙ্গেও।

প্রতিযোগিতা থেকে উঠে আসা ২৫ জন উদ্যোক্তার প্রত্যেকের জন্য থাকছে পুরস্কার ও সার্টিফিকেট, ৩ মাসব্যাপী দেশ-বিদেশের সেরা মেন্টরদের মাধ্যমে অনলাইন মেন্টরিং, ঢাকায় ১২ দিনের ক্যাম্পেইন, ব্যবসা শুরুর জন্য প্রারম্ভিক মূলধন, বিনিয়োগকারী ও মেন্টরদের সঙ্গে সাক্ষাতের ব্যবস্থা, সিউল, সাংহাই ও সিঙ্গাপুরে ওয়াইএসআই কনফারেন্সে অংশগ্রহণের সুযোগ।

ওয়াইএসআই বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর হিসেবে কর্মরত আছেন সুমন সাহা, যিনি গত বছর প্রথম বাঙালি হিসেবে ছিলেন ওয়াইএসআইয়ের সেরা ২৫ তরুণ উদ্যোক্তার একজন হিসেবে। তিনি জানান, ‘বাংলাদেশে ট্যালেন্ট হান্ট বা বেস্ট আইডিয়া হান্ট যে কম হয়, সেটা না। কিন্তু সেসব আইডিয়া অধিকাংশই পড়ে থাকে বিজয়ীদের ঘরের শোভা হিসেবেই। এটা আমাদের কারোরই কাম্য নয়। আমাদের একমাত্র লক্ষ্য আমাদের প্রাণপ্রিয় ঢাকা শহরের নানাবিধ সমস্যার টেকসই সমাধান করা, যার মাধ্যমে উদ্যোগ ও উদ্যোক্তা দুই-ই বিশ্বের সামনে নিজেদের গর্বের গল্পটি শোনাতে পারেন।’ একই কথার অনুরণন শোনা গেল ওয়াইএসআই বাংলাদেশের মিডিয়া অ্যান্ড আউটরিচ ডিরেক্টর সাদিক আল সরকারের কথাতেও, ‘বাংলাদেশের তরুণ উদ্যোক্তাদের সারা পৃথিবীতে ছড়িয়ে দিতে এবং তাদের মেধাকে কাজে লাগিয়ে দেশের জন্য নতুনভাবে কিছু করার জন্য কাজ করে যাচ্ছে ওয়াইএসআই বাংলাদেশ। এরই ধারাবাহিকতায় মেগাপ্রেনার্স দেশের সামগ্রিক উন্নয়নে অনেক বড় ভূমিকা রাখবে।’ অন্যদিকে ওয়াইএসআই বাংলাদেশের ইনোভেশন ডিরেক্টরের দায়িত্ব পালন করা শাদমান সাদাবের মতে, মেগাপ্রেনার্সের মতো একটি আয়োজন এদেশি উদ্যোক্তাদের দেশীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে কাজ করার সুযোগ করে দেবে, যা আমাদের দেশের টেকসই উন্নয়নের পথে সহায়ক হিসেবে কাজ করবে।’ চাইলে আপনিও হতে পারেন একজন মেগাপ্রেনার। এজন্য ফ্রি আবেদন করে আসুন ুsibd.com/megapreneurs/ এই ঠিকানায় গিয়ে এবং হয়ে উঠুন একজন সফল উদ্যোক্তা। দেশ আজ অপেক্ষায় আছে আপনার মতো কিছু সম্ভাবনাময় তরুণ উদ্যোক্তার জন্যই।

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
২৮ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯ ইং
ফজর৫:০৬
যোহর১২:১২
আসর৪:২৩
মাগরিব৬:০৪
এশা৭:১৬
সূর্যোদয় - ৬:২১সূর্যাস্ত - ০৫:৫৯
পড়ুন