আট বছরের মধ্যে সর্বনিম্ন সংশোধিত এডিপি বাস্তবায়ন
১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং
২০১৬-১৭ অর্থবছরে বাস্তবায়ন হার ৮৯.৮৯%

g ইত্তেফাক রিপোর্ট

গেলো ২০১৬-১৭ অর্থবছর সংশোধিত বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি (এডিপি) বাস্তবায়ন হয়েছে ৮৯ দশমিক ৮৯ শতাংশ। ২০০৮-০৯ অর্থবছরের পর এই প্রথম সংশোধিত এডিপি বাস্তবায়ন হার ৯০ ভাগের নিচে নেমে গেছে। গতকাল পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ে অনুষ্ঠিত এডিপি বাস্তবায়নের অগ্রগতি পর্যালোচনা সভায় এ তথ্য উঠে এসেছে। সভায় পরিকল্পনামন্ত্রী আহম মুস্তফা কামাল সভাপতিত্ব করেন।

বছর ভিত্তিক সংশোধিত এডিপি বাস্তবায়ন হার পর্যালোচনা করে দেখো গেছে, ২০০৮-০৯ অর্থবছরে ৮৬ শতাংশ, ২০০৯-১০ অর্থবছর ৯১ শতাংশ এবং পরবর্তী অর্থবছরগুলোতে যথাক্রমে ৯২%, ৯৩%, ৯৬%, ৯৫%, ও ৯১% সংশোধিত এডিপি বাস্তবায়ন হয়েছে। তবে মূল এডিপি বরাদ্দ থেকে বাস্তবায়ন হারের ফারাক অনেক বেশি। প্রতি অর্থবছরের তৃতীয় প্রান্তিকে এডিপি সংশোধন করে যে বরাদ্দ নির্ধারণ করা হয় তার ৯০ ভাগের বেশি অর্জিত হয়। কিন্তু গেলো ২০১৬-১৭ অর্থবছর সেটি ৯০ ভাগের নিচে নেমে গেছে। গতকাল অগ্রগতি পর্যালোচনা সভায় সর্বোচ্চ বরাদ্দ প্রাপ্ত ১৬টি মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধিদের সাথে মত বিনিময় করেন পরিকল্পনামন্ত্রী আহম মুস্তফা কামাল। সভা শেষে সাংবাদিকদের তিনি বলেন, নতুন ২০১৭-১৮ অর্থবছর এডিপি বাস্তবায়নে গতি বেড়েছে। বিভিন্ন প্রাকৃতিক দূর্যোগ থাকা স্বত্ত্বেও বাংলাদেশ দক্ষতার সাথে মোকাবেলা করে ভাল অবস্থানে আছে। প্রকল্প বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে প্রয়োজনে বিভিন্ন প্রকল্পের মধ্যে সমন্বয় করা হবে। সেইসাথে সচিবসহ আরো সদস্য নিয়ে কমিটি করে প্রকল্পের অগ্রগতি পর্যবক্ষণ করা হবে। এজন্য যথাযথভাবে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানকে তদারকি ও তাদের কাজের অগ্রগতি পর্যবেক্ষণ করেতে হবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

বৈঠক সূত্রে জানাগেছে, গেল অর্থবছরে প্রকল্প সাহায্য ব্যবহারের ক্ষেত্রে তিনটি মন্ত্রণালয় শতভাগ অগ্রগতি হয়েছে। অন্যদিকে প্রকল্প সাহায্য ব্যবহারে সর্বনিম্ন অবস্থানে রয়েছে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগ (১৬.৪১%), ২য় সর্বনিম্ন অবস্থানে রেলপথ মন্ত্রণালয় (৩৬.৯৬%) এর পর দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় (৫৭.৮৩%) এবং স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় (৬০.৮২%)। সার্বিক ভাবে ১২টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগ জাতীয় অগ্রগতি ৮৯.৮৯%।

অন্যদিকে চলতি ২০১৭-১৮ অর্থবছর এডিপিতে অন্তর্ভূক্ত সর্বোচ্চ বরাদ্দ প্রাপ্ত ১৬টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগ জুলাই-আগস্ট এই দুই মাসে মোট বরাদ্দের সাড়ে ৫ ভাগ ব্যয় করতে পেরেছে। যা আগের বছর ছিলো ৪ দশমিক ২৫ ভাগ। সে হিসাবে এবার এডিপি ব্যয় বেড়েছে বলে উল্লেখ করেন পরিকল্পনামন্ত্রী।

মন্ত্রী জানান, বন্যা ও অতিবৃষ্টির কারণে চলতি অর্থবছরে চালের উত্পাদন ৮ লাখ টন কম হবে। তাই চাল উত্পাদনের যে লক্ষ্য এবার ছিল তা পূরণ হবে না।

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
১১ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ইং
ফজর৪:২৭
যোহর১১:৫৬
আসর৪:২৩
মাগরিব৬:১০
এশা৭:২৩
সূর্যোদয় - ৫:৪৪সূর্যাস্ত - ০৬:০৫
পড়ুন