যুক্তরাষ্ট্রে যাত্রাবিরতির অনুমতি না দিতে চীনের আহ্বান
তাইওয়ানের প্রেসিডেন্টের গুয়াতেমালা সফর
বিবিসি০৮ ডিসেম্বর, ২০১৬ ইং
আগামী মাসে তাইওয়ানের প্রেসিডেন্ট সাই ইং ওয়ানের গুয়াতেমালা সফরের সময় যুক্তরাষ্ট্রে যাত্রাবিরতির অনুমতি না দেয়ার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে চীন। নিয়ম ভেঙে তাইওয়ানের প্রেসিডেন্টের সাথে ট্রাম্পের শুক্রবারের ফোনালাপের পর গতকাল মঙ্গলবার এ আহ্বান জানাল চীন। আগামী মাসে গুয়াতেমালা, নিকারাগুয়া ও এল সালভাদর যাওয়ার পথে যুক্তরাষ্ট্রে যাত্রা বিরতি নেওয়ার কথা রয়েছে তাইওয়ানের প্রেসিডেন্টের।

চীনের আশঙ্কা তাইওয়ানকে আনুষ্ঠানিকভাবে স্বাধীনতার দিকে ঠেলে নিয়ে যাচ্ছেন সাই ওয়েন। চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দাবি, সাই নিজেই তার প্রমাণ। ফলে নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে তার প্রতি বিরূপ মনোভাব পোষণ করে আসছে দেশটি। তাইওয়ানকে নিজের বিচ্ছিন্ন প্রদেশ বলেই দাবি করে আসছে বেইজিং।

সাই আগামী মাসের ১১-১২ তারিখ গুয়াতেমালা সফর করবেন বলে জানিয়েছেন দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী কার্লোস রাউল মোরালেস। তাইওয়ানের অল্প কয়েকটি কূটনৈতিক মিত্রের মধ্যে একটি গুয়াতেমালা। তবে এ সফরে সাই ও গুয়াতেমালার প্রেসিডেন্ট জিমি মোরালেস কি বিষয়ে আলোচনা করবেন, সে বিষয়ে বিস্তারিত কিছু জানাননি কার্লোস।

গুয়াতেমালা সফরকালে সাইয়ের নিউইয়র্কে ট্রানজিটের পরিকল্পনা রয়েছে বলে জানিয়েছে দ্য গার্ডিয়ান। তাইওয়ানের মিত্র দেশ বলে পরিচিত নিকারাগুয়া, গুয়াতেমালা ও এল সালভাদর সফর করবেন সাই। সাই ওয়েনের সফর পরিকল্পনায় যুক্তরাষ্ট্রে ট্রানজিট ও তাইওয়ানের ঘনিষ্ঠ মার্কিন সরকারি কর্মকর্তাদের সঙ্গে সাক্ষাত্ অন্তর্ভুক্ত করা হয়। ধারণা করা হচ্ছে, যুক্তরাষ্ট্রে যাত্রা বিরতিতে নিউ ইয়র্কে এসে ট্রাম্পের সঙ্গে দেখা করতে পারেন সাই। তবে ওই সম্ভাবনা উড়িয়ে দিয়েছেন ট্রাম্প শিবিরের একাধিক অন্তবর্তীকালীন কর্মকর্তা।

এদিকে, সাইয়ের সফরে সম্ভাব্য যাত্রা বিরতি নিয়ে চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, আন্তর্জাতিকভাবে পরিচিত ‘এক চীন’ নীতি অনুসারে তাইওয়ান চীনের অংশ। সাইয়ের যুক্তরাষ্ট্রে যাত্রা বিরতি প্রসঙ্গে বলা যায়, তার প্রধান উদ্দেশ্য সুস্পষ্ট। মন্ত্রণালয় জানায়, চীন আশা করছে যুক্তরাষ্ট্র তাকে যাত্রা বিরতির অনুমোদন দেবে না এবং তাইওয়ানের স্বাধীনতাকামী শক্তিকে কোনো ভুল সংকেত প্রেরণ করবে না।

গত শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট পদে নির্বাচিত ডোনাল্ড ট্রাম্প এবং তাইওয়ানের প্রেসিডেন্টের মধ্যে ফোনালাপ চীনকে ক্ষুব্ধ করে তুলেছে। যদিও তাদের এ আলাপ নিছক সৌজন্যমূলক ছিল বলে ব্যাখ্যা দিয়েছেন ট্রাম্প শিবির।

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
৮ নভেম্বর, ২০২১ ইং
ফজর৫:০৭
যোহর১১:৫১
আসর৩:৩৬
মাগরিব৫:১৫
এশা৬:৩৩
সূর্যোদয় - ৬:২৭সূর্যাস্ত - ০৫:১০
পড়ুন