মুসলিমবিরোধী দাঙ্গার তদন্ত করবে শ্রীলঙ্কা
কারফিউ প্রত্যাহার, সেনা পাহারায় জুমার নামাজ
এএফপি ও আল জাজিরা১১ মার্চ, ২০১৮ ইং
মুসলিমবিরোধী দাঙ্গার তদন্ত করবে শ্রীলঙ্কা

শ্রীলঙ্কার মধ্যাঞ্চলীয় শহর ক্যান্ডিতে মুসলিমবিরোধী দাঙ্গার বিষয়ে তদন্ত করবে দেশটির সরকার। পরিস্থিতি কিছুটা শান্ত হওয়ায় গতকাল শনিবার সেখান থেকে কারফিউ প্রত্যাহার করা হয়েছে। এর আগে শুক্রবার সেনা পাহারায় জুমার নামাজ আদায় করেছেন ওই এলাকার মুসলমানরা।

পাঁচদিন আগে ক্যান্ডি শহরে সংখ্যাগরিষ্ঠ বৌদ্ধ সিংহলিরা সংখ্যালঘু মুসলমানদের ওপর হামলা চালালে দাঙ্গার সূত্রপাত হয়। দাঙ্গা ছড়িয়ে পড়ার পর দ্রুততার সাথে প্রেসিডেন্ট মাইথ্রিপালা সিরিসেনা দেশব্যাপী জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেন। দেশটিতে চারদিনের দাঙ্গায় তিনজন নিহত ও কমপক্ষে ২০ জন আহত হয়। এছাড়া দাঙ্গার সময় ২শ’র বেশি ঘরবাড়ি ও দোকানপাট ভাঙচুর করা হয়। ক্যান্ডিতে ইন্টারনেট সেবা বন্ধ করে দেয়া হলেও শুক্রবার তা পুনরায় চালু করা হয়। তবে পুরো শ্রীলঙ্কায় ফেসবুকের মতো সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমগুলো ব্লক করে রাখা হয়েছে।

সিরিসেনার কার্যালয়ের এক বিবৃতিতে বলা হয়, অবসরপ্রাপ্ত তিনজন বিচারপতির সমন্বয়ে গঠিত একটি প্যানেল এ দাঙ্গার ঘটনা তদন্ত করবেন। দাঙ্গা ও ভাঙচুরে কারা উস্কানি দিয়েছিল এবং কারা জড়িত ছিল, সে বিষয়ে তদন্তকাজ চলছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। পুলিশের এক কর্মকর্তা বলেন, মূল হোতাসহ অন্তত ১৪০ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অমিথ ভীরাসিংহে নামে এক মুসলিমবিদ্বেষী সিংহলিকে প্রধান উস্কানিদাতা হিসেবে উল্লেখ করেছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অমিথ  মুসলিমবিদ্বেষী পোস্ট দিয়ে উত্তেজনা ছড়িয়ে আসছিলেন এবং সর্বশেষ দাঙ্গায় নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। অমিথকে বৃহস্পতিবার গ্রেফতার করেছে শ্রীলঙ্কার আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।

সরকারি কর্মকর্তারা জানান, রাজধানী কলম্বো থেকে ১১৫ কিলোমিটার পূর্বে অবস্থিত ওই জেলার কারফিউ শনিবার ভোর থেকে তুলে নেয়া হলেও সেখানে পুলিশের পাশাপাশি সেনা টহল অব্যাহত রয়েছে। ক্যান্ডির বিভিন্ন মসজিদে আগুন লাগিয়ে দেয়ায় বা ভাঙচুর করায় শুক্রবার ইসলাম ধর্মাবলম্বীরা মসজিদ প্রাঙ্গণে সাপ্তাহিক জুমার নামাজ আদায় করেন। এ সময় সশস্ত্র সেনারা তাদের পাহারা দেন। কলম্বোর এক পুলিশ কর্মকর্তা বার্তা সংস্থা এএফপিকে বলেন, ‘শুক্রবার জুমার নামাজের সময় কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।’

এদিকে দেশটির কয়েকশ’ বৌদ্ধ ভিক্ষু ও মানবাধিকার কর্মী মুসলমানদের ওপর হামলার ঘটনার কঠোর নিন্দা এবং তারা অপরাধীদের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেয়ার আহবান জানিয়েছে। ‘সামপ্রদায়িক সংঘর্ষ জাতীয় ঐক্য ধ্বংস করে’ দাবি করে দেশটির জাতীয় ভিক্ষু ফ্রন্ট শুক্রবার কলম্বোতে এই মৌন প্রতিবাদ জানান। এমনকি জুমার নামাজের সময় বিভিন্ন মসজিদে গিয়ে তারা মুসলিমদের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করেন। যেসব স্থানে মসজিদ ধ্বংস হয়েছে সেখানে খোলা মাঠে জুমার নামাজ পড়তে মুসলিমদের সহায়তা করেন বৌদ্ধ ভিক্ষুরা। এছাড়া সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সরব হয়ে উঠেছেন দেশের ক্রিকেট তারকাসহ সচেতন মানুষেরা।

 

এই পাতার আরো খবর -
facebook-recent-activity
১১ মার্চ, ২০১৯ ইং
ফজর৪:৫৬
যোহর১২:০৯
আসর৪:২৭
মাগরিব৬:০৯
এশা৭:২১
সূর্যোদয় - ৬:১১সূর্যাস্ত - ০৬:০৪
পড়ুন