সারাদেশ | The Daily Ittefaq

ছাত্রীর গায়ে পোড়া মবিল, ফেসবুকে সমালোচনার ঝড়

ছাত্রীর গায়ে পোড়া মবিল, ফেসবুকে সমালোচনার ঝড়
অনলাইন ডেস্ক২৮ অক্টোবর, ২০১৮ ইং ১৮:০৪ মিঃ
ছাত্রীর গায়ে পোড়া মবিল, ফেসবুকে সমালোচনার ঝড়
কলেজের ছাত্রীদের বহন করা বাসে হামলা চালিয়ে ছাত্রীদের মবিল লাগিয়ে দিয়েছেন পরিবহন শ্রমিকরা। ছবি: ফেসবুক
সড়ক পরিবহন আইন ২০১৮- এর কয়েকটি ধারা সংস্কারসহ ৮ দফা দাবিতে পরিবহন শ্রমিকদের ৪৮ ঘণ্টার ধর্মঘট চলছে। ধর্মঘটের প্রথম দিন রাজধানীতে বিভিন্ন স্থানে অফিসগামী যাত্রী আর স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের হেনস্তা করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে পরিবহন শ্রমিকদের বিরুদ্ধে।
 
এরই ধারাবাহিকতায় নারায়ণগঞ্জে সরকারি মহিলা কলেজের ছাত্রীদের বহন করা বাসে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করেছেন আন্দোলনরত পরিবহন শ্রমিকরা। একই সঙ্গে চালক ও ছাত্রীদের গায়ে পোড়া মবিল লাগিয়ে দিয়েছেন। রবিবার দুপুরে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোডের সাইনবোর্ড এলাকায় একটি পেট্রোল পাম্পের কাছে এ ঘটনা ঘটে।
 
একই সময়ে সিদ্ধিরগঞ্জে কয়েকটি অ্যাম্বুলেন্সে রোগী না থাকায় পোড়া মবিল লাগিয়ে দেন শ্রমিকরা। অ্যাম্বুলেন্সের চালক আব্দুল্লাহ জানান, রোগী আনতেই তিনি যাচ্ছিলেন। রোগী আনতে গেলে তো খালি যেতে হবে। কিন্তু শ্রমিকরা সেই কথা শুনেনি।
অ্যাম্বুলেন্সে মবিল লাগিয়ে দেন শ্রমিকরা। ছবি: ফেসবুক
 
শিক্ষার্থীরা জানান, দুপুর ১২টার দিকে সাইনবোর্ড এলাকা পার হওয়ার সময় শ্রমিকরা তাদের বাসটি থামিয়ে চালককে মারধর করেন। এরপর চালকের মুখে ও শরীরে পোড়া মবিল লাগিয়ে দেন। পরে এ ঘটনার প্রতিবাদ করলে কয়েকজন ছাত্রীকেও পোড়া মবিল লাগিয়ে দেন শ্রমিকরা। অকথ্য ভাষায় গালিগালাজও করেন। পরে বাসের কয়েকটি গ্লাস ভাঙচুর করে বাস থেকে তাদের নামিয়ে দেওয়া হয়।
 
বাসটির চালক মজিবর রহমান বলেন, বাসটিতে ৩৮ জন ছাত্রী ছিল। ছাত্রী বহনকারী বাসটি সাইনবোর্ড এলাকায় এলেই হামলা করে বাসের গ্লাস ভাঙচুর করেন শ্রমিকরা। 
হানিফ ফ্লাইওভারে ব্যক্তিগত গাড়ি চালকদের মুখে পোড়া মবিল লাগিয়ে হেনস্তা করেছেন পরিবহন শ্রমিকরা। ছবি: ফোকাস বাংলা
 
এদিকে এসব ঘটনায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বইছে সমালোচনার ঝড়। ইত্তেফাকের বার্তা সম্পাদক সাজ্জাদ হোসাইন নিজের ফেসবুকে লেখেন, ‘মানহানির বেদনায় অস্থির প্রতিবাদীরা আজ কোথায়? চালকের মুখে লেপটে দেওয়া কালি আপনাদের মুখে লাগেনি? ভাসুরের নাম মুখে নিচ্ছেন না কেন?’
 
এটিএন বাংলার হেড অব নিউজ প্রভাষ আমীন তার ফেসবুকে লেখেন, ‘সরকারের একজন মন্ত্রীর ডাকে সারাদেশে পরিবহণ ধর্মঘট চলছে। কার বিরুদ্ধে এ ধর্মঘট? জনগণকে জিম্মি করে দাবি আদায়ের এই খেলা পুরোনো। এই খেলার অবসান চাই।’
চালকের মুখে পোড়া মবিল লাগিয়ে দেন পরিবহন শ্রমিকরা। ছবি: ফোকাস বাংলা
 
উল্লেখ্য, গত ২৯ জুলাই রাজধানীতে বাসচাপায় দুই স্কুল শিক্ষার্থীর মৃত্যুর পর সারা দেশে শিক্ষার্থীদের নজিরবিহীন আন্দোলনের প্রেক্ষাপটে সড়ক পরিবহন আইন পাস করে সরকার। কিন্তু ওই আইনের কয়েকটি ধারা বাতিলের দাবি তুলেছেন পরিবহন শ্রমিকরা।
 
তাদের দাবিগুলো হলো- দুর্ঘটনায় চালকের পাঁচ লাখ টাকা জরিমানার বিধান বাতিল করা, চালকের শিক্ষাগত যোগ্যতা অষ্টম শ্রেণির পরিবর্তে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত করা, সড়ক দুর্ঘটনার সব মামলা জামিনযোগ্য করা, ৩০২ ধারার মামলার তদন্ত কমিটিতে শ্রমিক প্রতিনিধি রাখা,ওয়ে স্কেলে জরিমানা কমানো ও শাস্তি বাতিল এবং গাড়ি নিবন্ধনের সময় শ্রমিক ফেডারেশন প্রতিনিধির প্রত্যয়ন বাধ্যতামূলক করা, পুলিশি হয়রানি বন্ধ করা।
জরুরী ওষুধের গাড়ি বাঁধা দেওয়া হচ্ছে। ছবি: ফোকাস বাংলা
 
ইত্তেফাক/জেডএইচ
এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
১০ জুলাই, ২০২০ ইং
ফজর৩:৫১
যোহর১২:০৪
আসর৪:৪৪
মাগরিব৬:৫২
এশা৮:১৬
সূর্যোদয় - ৫:১৮সূর্যাস্ত - ০৬:৪৭