সারাদেশ | The Daily Ittefaq

চট্টগ্রামে শিবির কার্যালয়ে বিস্ফোরণ, ভবন ঘিরে পুলিশ

চট্টগ্রামে শিবির কার্যালয়ে বিস্ফোরণ, ভবন ঘিরে পুলিশ
চট্টগ্রাম অফিস০৩ নভেম্বর, ২০১৮ ইং ২১:১৮ মিঃ
চট্টগ্রামে শিবির কার্যালয়ে বিস্ফোরণ, ভবন ঘিরে পুলিশ
চন্দনপুরা এলাকায় ছাত্রশিবির কার্যালয়ে বিস্ফোরণ। ছবি: সংগৃহীত
নগরীর চন্দনপুরা এলাকায় ছাত্রশিবির কার্যালয়ে অভিযান চালিয়ে ৬টি ককটেল, এক বোতল পেট্রল, কাঁচের বোতল ও ককটেল তৈরির সরঞ্জাম উদ্ধার করেছে পুলিশ। 
 
শনিবার সন্ধ্যায় পুলিশের একটি টিম শিবির কার্যালয়ে অভিযানে গেলে ভবনের ভেতরে কয়েকটি বিস্ফোরণ ঘটিয়ে পালিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা। পরে পুলিশ ভবনটি ঘিরে ফেলে। বোমা ডিসপোজাল ইউনিটকে খবর দেওয়া হলে তারা এসে ভবনের ভেতরে অভিযান শুরু করে।
 
চকবাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নিজাম উদ্দিন বলেন, আমাদের কাছে তথ্য রয়েছে শিবির কার্যালয়ে সক্রিয় সদস্যরা অবস্থান করছে। আমরা এলাকায় ব্লক রেড দেওয়ার সময় শিবির কার্যালয়ের ভবনের চতুর্থ তলায় ৪/৫টি বিস্ফোরণ ঘটে। বিস্ফোরণের আওয়াজ বোমার শব্দের মত মনে হয়েছে। এতে পুরো এলাকায় আতংক ছড়িয়ে পড়ে। দুর্বৃত্তরা বিস্ফোরণ ঘটিয়ে ভবনের পিছন দিয়ে পালিয়ে গেছে।
 
পুলিশ জানায়, পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে তারা বিস্ফোরণ ঘটায়। বিস্ফোরণের পর শিবির কার্যালয় সংলগ্ন নবাব সিরাজদ্দৌল্লা রোডে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এলাকাবাসীর মধ্যে আতংক ছড়িয়ে পড়ে। 
 
এ প্রসঙ্গে নগর পুলিশের উপ-কমিশনার মেহেদী হাসান বলেন, শিবির কার্যালয়সহ ৬টি স্থানে আমরা ব্লক রেড চালানো হচ্ছে। এসব স্থানে নাশকতা ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড পরিচালনার জন্য জামায়াত শিবিরের সক্রিয় লোক অবস্থান করছে বলে তথ্য রয়েছে। এরপর আমরা অভিযান চালানোর প্রস্তুতি গ্রহণ করি।
 
জামায়াত-শিবির অধ্যুষিত এলাকা হিসাবে পরিচিত চন্দনপুরা এলাকায় শিবিরের মহানগর কার্যালয় অবস্থিত। শিবির কার্যালয়ের সামান্য দূরত্বে জামায়াতের নগর কার্যালয় অবস্থিত।
 
বিস্ফোরণ ঘটিয়ে গোপন সুড়ঙ্গ দিয়ে পালাল নেতাকর্মীরা
 
নগরীর চন্দনপুরা এলাকায় ছাত্রশিবির কার্যালয়ে অভিযান চালিয়ে ৬টি ককটেল, এক বোতল পেট্টোল, কাঁচের বোতল, ককটেল তৈরির সরঞ্জাম, শিবিরের প্রচারপত্র, চাঁদা তোলার রশিদ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বিস্ফোরণের পর শিবির কার্যালয় সংলগ্ন নবাব সিরাজদ্দৌল­া রোডে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।
 
গতকাল শনিবার সন্ধ্যায় পুলিশের একটি টিম শিবির কার্যালয়ে অভিযানে গেলে ভবনের ভেতরে কয়েকটি বিস্ফোরণ ঘটিয়ে পালিয়ে যায় সন্ত্রাসীরা। পরে পুলিশ ভবনটি ঘিরে ফেলে। বোমা ডিসপোজাল ইউনিটকে খবর দেওয়া হলে তারা এসে ভবনের ভেতরে অভিযান শুরু করে। গতকাল রাত সাড়ে নয়টা পর্যন্ত শতাধিক পুলিশ সদস্য ভবন ও আশপাশের এলাকায় অভিযান চালায়। বিস্ফোরণ এবং পরে ব্যাপক পুলিশি উপস্থিতির কারণে এলাকাজুড়ে আতঙ্ক দেখা দেয়।
 
নগরীর চন্দনপুরা মিয়ার বাপের বাড়ি সংলগ্ন আল ইসরা নামের ওই ভবনটি ছাত্র শিবিরের উত্তর-দক্ষিণের কার্যালয় হিসেবে ব্যবহূত হতো। ঘটনার পর সেখানে গিয়ে দেখা যায়, ভবনটির নিচতলা খালি। দোতলায় এক পাশে মসজিদ। ভবনের অপর দুইটি তলায় শিবিরের কার্যালয় ও শিবির সদস্যদের থাকার কক্ষ।
 
চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশ কমিশনার (সিএমপি) মাহবুবুর রহমান বলেন, সন্ধ্যার দিকে ওই এলাকায় পুলিশের তল্লাশি (ব্লক রেইড) চলছিল। হয়তো ওই সময় শিবির কর্মীরা পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে যায়। এসময় শিবিরের কার্যালয়ে কয়েকটি বিষ্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এ অবস্থায় পুলিশের সদস্য সংখ্যা বাড়ানো হয়।
 
তিনি বলেন, এরপরই ওই ভবনে পুলিশ অভিযান শুরু করে। অভিযানের সময় ভবনটির তৃতীয় তলা থেকে ৬টি ককটেলসহ বোমা তৈরির অন্যান্য সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়।
 
সিএমপি কমিশনার আরো বলেন, বিস্ফোরণের পর পেছনের একটি গোপন সুড়ঙ্গ পথ দিয়ে শিবিরের নেতা-কর্মীরা পালিয়ে যায়। সুরঙ্গ সম্পর্কে তিনি বলেন, আমরা আগেও অভিযান চালালেও সুরঙ্গের সন্ধান পাইনি। এ বারের অভিযানে শিবিরের সুরঙ্গের সন্ধান পাওয়া যায়। তিনি বলেন, সুরঙ্গটি শেষ হয়েছে শিবিরের ছাত্রী হোস্টেলে। সেখান থেকে বেশ কিছু জিহাদী বই উদ্ধার করা হয়েছে। তবে ঘটনার পর কাউকে গ্রেপ্তার করা সম্ভব হয়নি।
 
চকবাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নিজাম উদ্দিন বলেন, আমাদের কাছে তথ্য রয়েছে শিবির কার্যালয়ে সক্রিয় সদস্যরা অবস্থান করছে। আমরা এলাকায় ব্লক রেইড দেওয়ার সময় শিবির কার্যালয়ে ভবনের চতুর্থ তলায় ৪/৫টি বিস্ফোরণ ঘটে। এতে পুরো এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। সন্ত্রাসীরা বিস্ফোরণ ঘটিয়ে ভবনের পিছন দিয়ে পালিয়ে যায়।
 
জামায়াত-শিবির অধ্যুষিত এলাকা হিসাবে পরিচিত চন্দনপুরা এলাকায় শিবিরের মহানগর কার্যালয় অবস্থিত। এর সামান্য দূরত্বে জামায়াতের নগর কার্যালয় অবস্থিত। এছাড়া এই এলাকায় জামায়াতের অঙ্গসংগঠনগুলোর কার্যালয়ও রয়েছে। চট্টগ্রাম কলেজ ও মহসিন কলেজে কয়েক বছর যাবত্ শিবির নিয়ন্ত্রণ হারিয়েছে। বর্তমানে ছাত্রলীগের নিয়ন্ত্রণে থাকা এই দু’টি কলেজ বিভিন্নভাবে শিবির পুনরায় নিয়ন্ত্রণে নেওয়ার চেষ্টা চালাচ্ছে।
 
ইত্তেফাক/জেডএইচ
 
এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
১৪ অক্টোবর, ২০১৯ ইং
ফজর৪:৩৯
যোহর১১:৪৫
আসর৩:৫৫
মাগরিব৫:৩৭
এশা৬:৪৮
সূর্যোদয় - ৫:৫৫সূর্যাস্ত - ০৫:৩২